প্রচারেই প্রসার: এভাবেও সিনেমার মার্কেটিং করা যায়!

এখন সিনেমা কেবল ভাল হলেই চলে না, সিনেমার বিপণনও হওয়া চাই ভাল। আর ছবির প্রচারণার দিক থেকে কয়েক ধাপ এগিয়ে বলিউড তারকারা। ভারতীয় ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির কলাকুশলীদের অভিনব সব কায়দায় সিনেমার বিপণন করতে দেখা যায়। সেসব নিয়েই আমাদের এই আয়োজন।

  • বিপাশা বসু

‘রাজ থ্রি’ সিনেমাটি নানারকম কুসংস্কারের ওপর ভিত্তি করে বানানো। তাই, অভিনেত্রী বিপাশা বসু প্রচারণার অংশ হিসেবে পথে ঘুরে ঘুরে ভক্তদের লেবু আর মরিচ বিতরণ করে। ভারতে, লেবু আর মরিচকে খুব পবিত্র বলে মনে করা হয়।

  • আমির খান

আমির খান হলেন বিপণনের মাস্টার মাইন্ড। ‘গাজনি’ সিনেমার সময় তিনি এক গাদা ভক্তের মাথার চুল ফেলে দিয়েছিলেন। এমনকি সপ্তাহ দুয়েকের জন্য স্রেফ গায়েবও হয়ে গিয়েছিলেন।

আর ‘থ্রি ইডিয়টস’-এর সময় তিনি ছদ্মবেশ ধারণ করে ঘুরে বেড়িয়েছেন ছোট শহরগুলোতে। ‘পিকে’ সিনেমায় নিজের প্রথম পোস্টারেই চমকে দিয়েছিলেন আমির।

  • বিদ্যা বালান

‘ববি জাসুস’ সিনেমার প্রচারণার সময় একজন ভিক্ষুকের ছদ্মবেশ ধারণ করেছিলেন বিদ্যা বালান। সেই বেশে তিনি হায়দারাবাদ রেলওয়ে স্টেশনের বাইরে বসে যান। ওই সময় একটা মজার ঘটনা ঘটে। সবাই সত্যিই তাঁকে ভিক্ষুক বলে ধরে নেয়।

এক ভদ্রমহিলা তো রীতিমত তাঁকে বকাঝকাও করেন। বলেন, ‘কাজ করে খেতে পারো না, ভিক্ষা করো কেন!’ ‘কাহানি’ সিনেমার সময় তিনি সিনেমার মত বাস্তবেও শরীরে একটা নকল ‘বেবি বাম্প’ লাগিয়ে ফেলেন, যাতে করে মনে হয় সত্যিই তিনি সন্তান সম্ভবা।

  • আলিয়া ভাট

স্যোশাল মিডিয়ার সবাই চমকে গিয়েছিল, যখন সবাই জানতে পারে বাগদান হতে চলেছে আলিয়া ভাটের। হ্যা, ‘টু স্টেটস’ সিনেমার প্রচারণার সময় ঠিক এই কাজটাই করে বসেছিলেন আলিয়া। হ্যা, এই কৌশলটা বেশ দারুণ ভাবেই কাজে লেগে যায়।

  • সানি লিওন

ভুতুড়ে প্রচারণার দিক থেকে সানি লিওনও কম পারদর্শী নন। ‘রাগিনি এমএমএস ২’ সিনেমার সময় অটোরিকশাগুলোর পেছনে লেখা থাকতো ‘রাগিনি কা এমএমএস দেখা ক্যায়া?’। সিনেমাটি বিপুল সাফল্য পায়। শুধু তাই নয়, গুগলে ভোক্তাদের ‘রাগিনি এমএমএস’ লিখে সার্চ দেওয়ার প্রবণতাও বেড়ে যায়।

‘জিসম টু’ সিনেমার সময় আরেক বিচিত্র কাজ করেন সানি। এসময় নিজের অন্তর্বাস নিলামে তুলে সবার দৃষ্টি আকর্ষ করেন তিনি। হ্যা, ঠিকই শুনেছেন, নিজের অন্তর্বাস।

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।