কে কি বললো, তাতে কিছু যায় আসে না

বেড়ে ওঠার সময়, আমি শাহরুখ খানকে নিয়ে পাগল ছিলাম। আমি ওনার পোস্টার গুলোর দিকে তাকিয়ে থাকতাম আর ভাবতাম একজন আউটসাইডার হয়েও যদি তিনি বলিউডের এত বড় একজন সুপারস্টার হতে পারেন তাইলে আমারও একটা সুযোগ আছে তার মত হওয়ার। তবে এই যাত্রাটা সহজ ছিল না, মুম্বাই এ আসার পর আমি কোনো কাজ পাইনি। শুধু কয়েকটা ছোটো কাজ পেয়েছিলাম। আমি একটা র‌্যান্ডম নিউজপেপার বিজ্ঞাপনের দশ নাম্বার মানুষ ছিলাম যে নিউজপেপারটায় দাঁড়িয়ে আছে।

আমি মাসে মাত্র আট হাজার থেকে ১০ হাজার রুপি আয় করতাম। তবে এমনও একটা সময় ছিল যখন আমার কাছে কোনো টাকা ছিল না আর খাবারের জন্য আমাকে আমার বন্ধুদের বাসায় যেতে হত। ছেড়ে দেওয়ারও কোনো উপায় ছিল না। আর ছিলনা কোনো প্ল্যান ‘বি’। বারবার অডিশনের জন্য আমি বিভিন্ন বিজ্ঞাপন আর কাস্টিং ডিরেক্টরদের সাথে যোগাযোগ করি। তারা আমাকে বিভিন্ন ছোট রোলের জন্য ডাকতেন। কিন্তু আমি তাদের কাছে অপেক্ষাকৃত বড় রোলের জন্য অডিশন চাইতাম। কিন্তু, তারা মানে নি। আমি অনেক নারাজ ছিলাম। কিন্তু কখনোই হতাশ হইনি।

আমি নিরবিচ্ছিন্নভাবে কাস্টিং ডিরেক্টর অতুল মঙ্গিয়াকে অনুরোধ করে যাচ্ছিলাম যতক্ষণ না তিনি শেষ পর্যন্ত আমাকে ‘লাভ সেক্স ওর ধোকা’র অডিশনের জন্য ডাকেন। এক সপ্তাহ চলে গেল, এরপর নিজেকে প্রশ্ন করলাম, ওরা কি আমাকে কল করবে?

অবশেষে আসলো। এতদিন যেগুলোর জন্য কাজ করেছিলাম অতঃপর তার সন্তোষজনক ফল পেলাম। আমি তখন বাসায় ছিলাম আর আসলো আমার জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ফোন কল। শব্দগুলো হলো – ‘হো গায়া, ইউ গট দ্য ফিল্ম’। আমি মাটিতে পড়ে গেলাম, এরপর কান্না শুরু করলাম আর আমার মাকে ফোন দিলাম।

এরপর মুভি রিলিজ হলো আর আমার দরজা খুলে গেল। তারপরও আমি আপনাদের আরেকটা ঘটনা বলবো।

তখন ‘কুইন’ রিলিজ হয়েছে কয়েকদিন হলো, আমি তখন মেহবুব স্টুডিও তে শুটিং করছিলাম। কিছুক্ষণ পর জানলাম, শাহরুখ স্যারও আছেন ওখানে। আমি ভাবলাম এটাই হয়ত আমার সুযোগ উনার সাথে সাক্ষাৎ করার। আমি ভাবিইনি যে উনি আমাকে চিনবেন। কিন্তু, উনি আমাকে উনার কাছে ডাকলেন, উনি আমার পুরো বায়ো জানতেন! উনি আমাকে অনেক স্পেশাল বোধ করালেন। আমি বরাবরই উনার ফ্যান ছিলাম; তবে ওইদিন হয়ত ছিলাম ওনার ‘বিগেস্ট’ ফ্যান।

আমি তখন অনেক নার্ভাস ছিলাম আর ভাবছিলাম, একসময় আমি ওনার পোস্টারের সাথে কথা বলতাম আজ উনি আমার সামনে বসে আছেন। আমি কিভাবে বলবো ওইসময় আমি কি বোধ করছিলাম!

তবে সবচেয়ে আশ্চর্যজনক বিষয় হচ্ছে একসময় যারা আমাকে লিড রোল দিতেই আগ্রহী ছিল না; আজ তারাই আমাকে ফিল্ম অফার করছে। আমি ওই একই মানুষ, একই অভিনেতা কিন্তু আজ আমাকে ফিল্ম অফার করা হয়।

আমি তখনও, আমার পারফরম্যান্সে বিশ্বাসী ছিলাম যখন আমার দিন ভাল যাচ্ছিল না। আমি শুধু এটা জানি, আমি আমার সামর্থটাকে পুরো পৃথিবীকে দেখিয়েছি আর আমার দিকে টেনে নিয়েছি।

মনে রেখো, কে তোমাকে নিয়ে কে কি বললো তাতে কিছু যায় আসে না, কেউ তোমাকে বিশ্বাস করবে না। যত পারো তত দ্রুত নিজের কাজটা করে যাও, বাকিটা না হয় দুনিয়া দেখে নিবে।

__________

কথাগুলো স্বয়ং বলিউড অভিনেতা রাজকুমার রাওয়ের।

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।