মাইকিংয়ের দিন শেষ: প্রচারণায় এখন ক্রিকেট ম্যাচ!

সিনেমা নির্মাণ করার পর তা দর্শককে জানাতে হয়। না জানলে দর্শক সিনেমা দেখতে প্রেক্ষাগৃহে আসবেনা। কথা হলো কি করে জানাবেন? মাইকিং করে?

‘ভাইসব, ভাইসব, আসিতেছে….মহাসমারোহে……আপনার বাড়ির পাশের প্রেক্ষাগৃহে…’

ভাই থামেন, কত চেঁচাবেন? নতুন কিছু ভাবেন।

তাহলে? কি করা যায়? বাইক শো করেন। করেন র‍্যালি, জানান উপস্থিত আম জনতাকে। আপনিও সিনেমা নিয়ে আসছেন, বিক্রি করবেন।

নতুনত্ব তো নেই! টি-শার্ট গিফট করেন, ফেসবুকে লিখতে লিখতে কী-বোর্ডে দফারফা করে ফেলেন, গ্রুপে গ্রুপে পোস্ট দিয়ে ঝড় তোলেন!

উপরে যেসব প্রমোশান আইডিয়ার কথা হলো সবই বলতে গেলে সাধারন। এ সাধারনের মাঝেও অসাধারন কিছু ভাবতে হয়। সে কাজটিই এবার হতে যাচ্ছে আগামী ১৩ নভেম্বর, ঢাকার আবাহনী মাঠে।

কী হবে সেদিন? কনসার্ট? জ্বালাময়ী ভাষণ? ফ্যাশন শো? নাহ, ওসব কিছুই হবে না। হবে ক্রিকেট খেলা!

চমকে উঠলেন? ক্রিকেট খেলায় প্রমোশন? হুমম, এমনকিছুই হতে যাচ্ছে। বাংলা সিনেমার ইতিহাসে প্রথমবার। মুক্তি প্রতিক্ষীত দুটো ছবি, ‘দহন’ ও ‘মিস্টার বাংলাদেশ’ তাদের প্রচারণার অংশ হিসেবে আয়োজন করতে যাচ্ছে এ ক্রিকেট ম্যাচ। সহযোগীতায় আছে একদল তরুণের গড়া বাংলা চলচ্চিত্র নিয়ে স্বপ্নদেখা ‘থিয়েটার থ্রেড’।

দুটো একাদশ মুখোমুখি হবে। ‘দহন একাদশ’ বনাম ‘মিস্টার বাংলাদেশ একাদশ’। একটি ছবি আসবে ১৬ নভেম্বর, অন্যটি ৩০ নভেম্বর। দুটো ছবির প্রমোশান তাহলে হয়েই যাচ্ছে, একই সাথে, একই মাঠে, পাশাপাশি।

ব্যাপারটা রোমাঞ্চকর। দুই সিনেমার কলা-কুশলীরা ব্যাট হাতে, প্যাড পায়ে মাঠে নেমে পড়বেন, তাদের উৎসাহ দেবেন দর্শক। একটু গভীরে যাওয়া যাক। ব্যাট হাতে খিজির হায়াত খান, ওরফে মিস্টার বাংলাদেশ। অন্যদিকে বল হাতে সিয়াম, ওরফে মাতাল তুলা। তাদের উৎসাহ দিচ্ছেন দুই সুন্দরী নায়িকা, শানারেই দেবী শানু ও পূজা চেরী। যেন ক্রিকেটের গল্পে তৈরী সিনেমার দৃশ্য। এমন দৃশ্যের অবতারণা হতে পারে, ক্রিকেট খেলার দিন।

‘মিস্টার বাংলাদেশ’ ছবিটি নির্মিত হয়েছে সমসাময়িক অস্থিতিশীল পরিস্থিতির উপর ভিত্তি করে। আমাদের দেশে সাম্প্রতিক ঘটনাবলী নিয়ে সিনেমা নির্মিত হয় না বললেই চলে। তার মাঝে এক পশলা স্বস্তির নি:শ্বাস বলা চলে ‘মিস্টার বাংলাদেশ’। যে মানুষটি কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি খিজির হায়াত খান। তার সাথে আছেন প্রথম লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার শানারেই দেবী শানু।

অন্যদিকে ‘দহন’ ছবিতে আছেন ‘পোড়ামন-২’ দিয়ে দর্শক মাতানো জুটি সিয়াম – পূজা। তাদের সঙ্গে আছেন আরেক লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার জাকিয়া বারী মম।  এ ছবির গল্পেও আছে সাময়িক রাজনৈতিক অস্থিরতার ছাপ।

আমাদের সিনেমার পেছনের মানুষগুলো সাম্প্রতিক সময়ে প্রচারণায় বেশ সময় দিচ্ছে, বিষয়টা বেশ স্বস্তির। কিছুদিন আগেই ‘দেবী’ চলচ্চিত্র নিয়ে প্রযোজক জয়া আহসান ছুটেছেন সর্বত্র। মানুষের কানে, নিউরণের অনুরণনে পৌঁছে দিয়েছেন ‘দেবী’র নাম। ফলস্বরূপ ‘দেবী’ টানা চতুর্থ সপ্তাহ চলছে দেশজুড়ে। এরপূর্বে ‘পোড়ামন – ২’ নিয়ে প্রচারণা হয়েছিল, যে ছবি বছরের অন্যতম সফল ছবি হয়ে গেছে ইতোমধ্যেই। তারওপূর্বে ‘আয়নাবাজী’ ও ‘ঢাকা অ্যাটাক’ ছবির প্রচারণায় ঝড় উঠেছিল সর্বত্র।

তারই ধারাবাহিকতায় নতুন করে দেখা গেল নতুন দুটি ছবিকে। টেলিভিশন, অনলাইন মিডিয়া, প্রিন্ট মিডিয়াকে নিয়মিত সাক্ষাৎকার দেয়ার পাশাপাশি মূল শিল্পীরা নিজেরাই প্রচারণা করছেন নানান উপায়ে। দর্শকের কাছে গিয়ে আর্জি জানাচ্ছেন ছবিটি দেখার জন্য, অন্তত একবার। দর্শককে সিনেমাহলে নিয়ে আসার জন্য বর্তমান প্রেক্ষাপটে এসব করতেই হবে মেনে নিয়ে ছুটছেন তারা।

‘মিস্টার বাংলাদেশ’ কিংবা ‘দহন’ ছবির নতুন এ আইডিয়া সাধুবাদ পেতেই পারে। একই পরিবেশকের দুটো ছবি বলে হয়তো ব্যাপারটা সহজ হয়েছে, তাই বলে ভিন্ন পরিবেশকের হলে কি আমরা আইডিয়াটা ফেলে দেব? মোটেও না, সিনেমা ইন্ডাস্ট্রী বাঁচাতে হলে রেষারেষি ভুলতে হবে, কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে চলতে হবে।

একইসঙ্গে দুটো সিনেমার প্রচারণা আমাদের সিনেমা ইন্ডাস্ট্রিতে নতুন ধারা সৃষ্টি করবে, বাকীরা সে ধারার সাথে মিলিয়ে চলতে পারলে হয়!

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।