সিআইডি’র কেস ক্লোজড!

ভারতীয় টেলিভিশন চ্যানেলে সবচেয়ে লম্বা সময় ধরে চলমান সিরিজগুলোর একটি হল ‘সিআইডি’। গেল দুই দশকের বেশি সময় ধরে এই শো দর্শকদের বিনোদনের খোড়াক যুগিয়ে এসেছে। শুধু, ভারতেই নয়, বাংলাদেশেও সিআইডি ভক্তের সংখ্যা নেহায়েৎ কম নয়।

তবে, এই দীর্ঘ পথ অবশেষে শেষ হতে চলেছে। এই সিরিজটি শেষ করে দেওয়া সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়ে গেছে। আগামী ২৭ অক্টোবরই শেষবারের মত সম্প্রচারিত হবে সিআইডি। এরই মধ্যে এই সিরিজের ১৫৪৬ টি এপিসোড প্রচারিত হয়েছে।

এই সিরিজের সুবাদে অনেকেই খ্যাতির আকাশ ছুঁয়েছেন। এসিপি প্রদিউমানের চরিত্রে শিবাজী সত্যম, সিনিয়র ইন্সপেক্টর অভিজিৎ ও দয়া’র চরিত্র আদিত্য শ্রীবাস্তব ও দয়ানন্দ শেঠি ও ইন্সপেক্টর ফ্রেডরিক্সের চরিত্রে দীনেশ ফাডনিস আলোচিত হয়েছেন।

মাঝে খানিকদিন এই সিরিজের এপিসোড সম্প্রচার বন্ধ ছিল। পুনরায় জনপ্রিয়ত ফিরিয়ে আনার কাজ চলছিল। এরই মধ্যে আসলো শো বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত।

সেই ১৯৯৮ সালে যাত্রা শুরু করে সিআইডি। চলেছে দুই দশকের বেশি সময়। এই সিরিজের আইকনিক ডায়লোগগুলো চলে গেছে ইতিহাসের পাতায়। অসংখ্য মিম, ট্রলও হয়েছে। তবে, এই সব কিছুর ইতি ঘটতে চলেছে।

এই সিরিজে দয়া’র চরিত্র করা দয়ান্দ শেঠি খবরের সত্যতা জানিয়ে বলেন, ‘হ্যা, এটাই সত্যি। সম্প্রতিই আমাদের এই তথ্য জানানো হয়েছে। ৪-৫ দিন আগে আমরা শ্যুটিংও শেষ করে ফেলেছি। আগামী শনিবার (২৭ অক্টোবর, ২০১৮) সিআইডি’র শেষ পর্ব সম্প্রচার করা হবে।’ যদিও সম্প্রচারকারী চ্যানেল সনি এন্টারটেইনমেন্টের পক্ষ থেকে এখনো আনুষ্ঠানিক ভাবে কিছুই জানানো হয়নি।

দয়া জানালে সিআইডি তাঁদের জন্য একটি পরিবারের মতই ছিল। তাই হঠাৎ করে বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্তটা মেনে নেওয়া কারো জন্যই সহজ ছিল না, ‘আমরা এখন ২১ তম বছরে পা দিয়েছি। আমাদের হাতে স্ক্রিপ্ট ছিল আরো কয়েকটা পর্ব করার জন্য। এটা দিয়ে দিব্যি আমরা ২২ তম বছরে পা রাখতে পারতাম। তাই খবরটা আমাদের সবার জন্য শকিং ছিল। অন্য সব সময়ের মতই শ্যুটিং করছিলাম, তখনই প্রযোজক বি. পি. সিং এসে খবরটা জানালেন। আসলে চ্যানেলের সাথে সিরিজটির কিছু ইস্যু ‍ছিল, যার কারণে বন্ধ করে দিতে বাধ্য হচ্ছি আমরা। আমি আমার চরিত্রটা মিস করবো। দর্শকরা এই সিরিজটা পছন্দ করতো। তাই বন্ধ করার ব্যাপারটা মেনে নেওয়াটা আমাদের জন্য কষ্টদায়ক। অভিনেতা ও ক্রু মেম্বাররা – আমরা একটা পরিবারের মত ছিল। বড় একটা সুখী পরিবার। আমরা সবাই এটা মিস করবো। এটাই ছিল আমাদের সেকেন্ড হোম।’

– টাইমস অব ইন্ডিয়া অবলম্বনে

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।