যেকারণে বিটিভির কাছে চিরঋণী নব্বইয়ের প্রজন্ম

আমরা কিংবা নব্বই দশকের প্রজন্ম বিটিভি’র কাছে ঋনী। কি বিশ্বাস হয় না – আপনার

আলি বাবার পেছনে চল্লিশ চোর- টানটান উত্তেজনা! সিনবাদ জাহাজ নিয়ে অজানা এক গন্তব্যের দিকে ছুটবে আজ! মতি মিয়ার আজ বিচার হবে; বড় চাচা, বাবা, তিতলি ভাইয়া, কঙ্কা ভাইয়া সবাই বাড়ির উঠোনে! আজ বাকের ভাইয়ের ফাঁসির প্রতিবাদে ঢাকায় নাকি মিছিল বেরুবে!

শীতের ঈদে গায়ে চাদর, গলায় মাফলার আর সোয়েটার জড়িয়ে পরিবারের সবাই ইত্যাদি দেখতে বসেছে; চোখের পাতা নড়ছে না কারো। বিটিভির আনন্দমেলা দেখার জন্য উত্তেজনা বিরাজ করতো! বুদ্ধিমান ম্যাকগাইভার না জানি আজ কি করবে!

শুক্রবার পরিবারের সবাই সকল কাজ শেষ করে বেলা তিনটায় টিভির সামনে হাজির। পূর্ণদৈর্ঘ্য সিনেমা দেখানো হবে আজ। একটু পরই ঘোষনা দেবে- আজ দেখানো হবে ‘রংবাজ’ সিনেমা; শ্রেষ্টাংশে- রাজ্জাক, কবরী প্রমুখ!

আজ রবিবার

এক সময় টিভির কোন রিমোট ছিল না, ছিল না এত চ্যানেল! রিমোট থেকেও লাভ হতো না, কারন চ্যানেল ছিল একটি। মাঝে মধ্যে ভারতের দূরদর্শন হয়তো দেখা যেতো! পরিবারের সবাই এই একটি চ্যানেল দেখার জন্য মুখিয়ে থাকতো। চ্যানেলটির নাম- ‘বাংলাদেশ টেলিভিশন’!

বহুব্রীহি, অয়োময়, কোথাও কেউ নেই, আজ রবিবার কিংবা রুপনগর, ইতিকথা’র মত অসংখ্য কালজয়ী নাটক এক সময় এই চ্যানেলটিতে প্রচার হতো। আলিফ লায়লা, ম্যাকগাইভার, মিস্ট্রিয়াস আইল্যান্ড এর মত অনুষ্ঠান এক সময় দেখা যেতো এই চ্যানেলে!

অনেকেরই শৈশব আর কৈশোর কেটেছে এই চ্যানেলটি দেখতে দেখতে। সময় বদলেছে এবং নদীর জল ও গড়িয়েছে অনেক।হয়েছে অসংখ্য চ্যানেল- রিমোটের ও বিশ্রাম নেই। কিন্তু পুরনো সেই রোমাঞ্চ কি এখনো আছে?

আছে, বাকের ভাইকে নিয়ে মিছিল বের করার মত কোন নাটক। আছে, ছি: ছি: তুমি এত খারাপ- সংলাপ বলার মত কোন অভিনেতা, কোন নাটক!
কিংবা তোমার ঘন কালো চুলে হারিয়ে যায় মন- এর মত কোন বিজ্ঞাপন। এখনো কি পরিবারের সবাই মিলে একসাথে টিভি দেখতে বসে ড্রয়িংরুমে?
আমার জানা নেই!

ইত্যাদি

এখনো কি আগের মত সেই অপেক্ষা আছে? স্মার্ট ফোন কিংবা পাবজি তে ডুবে থাকা নতুন প্রজন্ম অনুভব করতে পারে সবাই মিলে টিভি দেখার আনন্দ!

মুখে কিছু না বললেও এখনো অনেকে সেই পুরনো বিটিভিকে খুঁজে ফেরে! খুঁজে ফেরে ম্যাকগাইভার, আলী বাবাদের শুধু দেখার জন্য নয় বরং একটা ধন্যবাদ দেয়ার জন্যও। কেননা আমাদের অনেকের শৈশব আর কৈশোর যে ঋনী তাঁদের কাছে, ঋনী বিটিভির কাছে!

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।