সংসার ভাঙতেও এত খরচ!

বলিউডে অনেক ধুমধাম, অনেক খরচ করে বিয়ের বিস্তর নজীর দেখা যায়। মজার ব্যাপার হল, অনেক খরুচে বিবাহ বিচ্ছেদের নজীরও আছে বলিউডে। দু’জনার দু’টি পথ আলাদা করতেও এত খরচ!

  • আদিত্য চোপড়া ও পায়েল খান্না

সবাই জানেন এখন আদিত্য’র সাথে রানী সুখের সংসার করছেন। যদিও, এই প্রযোজকের প্রথম স্ত্রী পায়েল খান্নার কথা খুব কম লোকই জানেন। ২০০১ থেকে ২০০৯ সাল অবধি তাঁদের সংসার টেকে। ভরণভোষণের ক্ষতিপূরণ বাবদ আদিত্য কি পরিমান অর্থ দিয়েছিলেন, সেটা জানা নেই তবে এটুকু বলা যায় যে, এটা ছিল বলিউডের ইতিহাসে সবচেয়ে খরুচে বিচ্ছেদগুলোর একটি।

  • কারিশমা কাপুর ও সঞ্জয় কাপুর

অভিষেকের সাথে বাগদান করেও সরে দাঁড়ানোর পর ২০০৩ সালে শিল্পপতি সঞ্জয় কাপুরের সাথে বেশ ধুমধাম করে বিয়ে হয় কারিশমা কাপুরের। ২০১৫ সালে তাঁদে বিচ্ছেদ হয়। ক্ষতিপূরণ বাবদ কারিশমা পান সাত কোটি ‍রুপি।

  • সঞ্জয় দত্ত ও রিয়া পিল্লাই

রিয়ার অভিযোগ ছিল বিবাহিত জীবনের বাইরে তিনি পরকীয়ার সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন নাদিয়া দুররানির সাথে। রিয়ারও সম্পর্ক ছিল টেনিস তারকা লিয়েন্ডার পেজের সাথে। ২০০৫ সালে তাঁরা আনুষ্ঠানিক ভাবে বিচ্ছেদ সারেন। সঞ্জয়কে আট কোটি রুপি ক্ষতিপূরণ দিতে হয়।

  • আমির খান ও রিনা দত্ত

১৯৮৬ সালে তাঁদের বিয়ে হয়। বিচ্ছেদ হয় ২০০২ সালে। ডিভোর্সের ফাইল দাখিল করার পর ক্ষতিপূরণ হিসেবে রিনা ৫০ কোটি রুপি চেয়েছিলেন।

  • হৃতিক রোশন ও সুজান খান

সেই কৈশোর বয়স থেকে তাঁদের প্রেম। তাই, যখন বিচ্ছেদের খবর আসলো ভক্তরা প্রথমে বিশ্বাসও করতে চাননি। ২০১৪ সালে তারা আলাদা হয়ে যান। সুজান ক্ষতিপূরণ হিসেবে ৪০০ কোটি রুপি চেয়েছিলেন।

  • প্রভু দেবা ও রামলাথ

১৯৯৫ সালে তাঁদের বিয়ে হয়। ১৬ বছরের বৈবাহিক সম্পর্কের পর তাঁদের বিচ্ছেদ হয়। রামলাথ ক্ষতিপূরণ হিসেবে ২০-২৫ কোটি রুপির সম্পতি পান। একই সাথে ১০ লাখ রুপি নগদ অর্থ ও দু’টো দামী গাড়িও সাথে করে নিয়ে যান।

  • সাইফ আলী খান ও অমৃতা সিং

১৪ বছর সংসার করার পর ২০০৪ সালে সাইফ-অমৃতার ডিভোর্স হয়। ক্ষতিপূরণ হিসেবে অমৃতাকে সাত কোটি রুপি দেওয়া হয়। এটাও বলা হয় যে, সাইফ তাঁর পৈত্রিক সম্পদের অর্ধেকটা অমৃতাকে দিয়ে দেন ওই সময়।

– দ্য ব্রাইডাল বক্স ও বলিউড বাবল অবলম্বনে

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।