তাঁদের ঠাই হয়েছিল জেলে!

চলচ্চিত্রেরর দুনিয়াটা কেবল জমকালোই নয়, অনেক সময় কলুষিতও। আলোকে পিছনে ঠেলে তাই কালো সত্যগুলো প্রায়ই বেরিয়ে আসে, বলিউড লজ্জিত হয়। সালমান খান ও সঞ্জয় দত্তকে অনেকবার কারাগারে বা আদালতে যেতে শোনা যায়। তবে, খুব অভিনেত্রীদের সম্পর্কেই এসব খবর পাঠকরা জানেন না বলেই চলে। সেসব অজানা অধ্যায়ের গল্পই এবার আমরা বলতে যাচ্ছি।

  • মনিকা বেদি

মনিকা বেদির সাথে আন্ডারওয়ার্ল্ড ডন আবু সালেমের প্রেমের গল্পটা এক সময় বলিউডের টক অব দ্য টানি ছিল। সেই সুবাদে অনেকবারই তাঁকে পুলিশ স্টেশনে এসে জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হতে হয় মনিকাকে। অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় কয়েকবছর জেলেও থাকতে হয় তাকে। নিজের পরিচয় গোপনের অপরাধে তাকে আড়াই বছর জেলে কাটাতে হয়। জেল থেকে ছাড়া পান ২০১০ সালে।

  • শ্বেতা প্রসাদ বসু

সেক্স র‌্যাকেটের সাথে জড়িত থাকার মত ভয়াবহ অভিযোগে হায়দারাবাদ পুলিশ তাঁকে গ্রেফতার করেছিল। যদিও, পরে এই অভিনেত্রী নিজেই বলেছিলেন যে, পুরোটাই ভুল বোঝাবুঝি। ২৭ বছর বয়সী অভিনেত্রী ২০০২ সালে শিশুশিল্পী হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জিতেছিলেন। বলিউডে তিনি বিখ্যাত ‘ইকবাল’ সিনেমার শিশু চরিত্রের জন্য।

  • মিষ্টি মুখার্জী

২০১৪ সালের নয় জানুয়ারি মুম্বাইয়ে একটা বিশাল সেক্স র‌্যাকেট ধরা পড়ে। বেরিয়ে পড়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য। জানা যায়, র‌্যাকেটটি চালাতেন অভিনেত্রী মিষ্টি মুখার্জী। গ্রেফতারের সময় অনেক নীল ছবিসহ আপত্তিকর অবস্থায় পাওয়া যায় তাঁকে। যদিও ২০১৬ সালে ‘গ্রেট গ্র্যান্ড মাস্তি’ ও ‘বেগমজান’ সিনেমায় অভিনয় করেন তিনি।

  • সোনালী বেন্দ্রে

নিষ্পাপ হাসির জন্য বিখ্যাত সোনালী ‘সারফারোশ’, ‘হাম সাথ সাথ হ্যায়’ ও ‘দিলজালে’ সিনেমার জন্য খ্যাতি পান। ১৯৯৯ সালে সালমান খানে কালো হরিন শিকার কেসের সুবাদে বেশ কয়েকবার তিনি পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হন। ২০০৮ সালে তিনি একটি ফটোশ্যুটে হলুদ রঙা কুর্তা পড়েছিলেন যেখানে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের একটি প্রতীক আঁকা ছিল। ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার দায়ে সেবার তাঁকে জেলে যেতে হয়। যদিও, দ্রুতই জামিনে ছাড়া পেয়ে যান।

  • মধুবালা

হারানো দিনের খ্যাতনামা এই নায়িকা ‘মুঘল-ই-আজম’, ‘চালতি কা নাম গাড়ি’ ও ‘মহল’ সিনেমার জন্য বিখ্যাত। খুব কম ভক্তই জানেন যে, এই নায়িকাকেও একবার জেলে যেতে হয়েছিল। ১৯৫৭ সালে একটা সিনেমার জন্য অগ্রীম পারিশ্রমিক নিয়েছিলেন তিনি। পরে সিনেমাটি করতে অস্বীকৃতি জানান, পারিশ্রমিকও ফিরিয়ে দেননি। প্রযোজক তাই বাধ্য হয়ে তাঁর নামে এফআইআর করেন। সেই সময় অল্প কিছুদিনের জন্য জেলের হাওয়া খেতে হয়েছিল এই কিংবদন্তিকে।

– বলিবাইটস অবলম্বনে

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।