বিগ বাজেট, বিগ ফ্লপ

অনেক উৎসাহ নিয়ে প্রিয় তারকার সিনেমা দেখতে বসেছেন, অথচ সিনেমা পছন্দ হয়নি – এমন ঠিক ক’বার হয়েছে? কিংবা সিনেমা ভাল লেগেছে, পরে পত্রিকা করে জানতে পারলেন সিনেমাটা ফ্লপ করেছে? – ব্যাপার হল সিনেমা অনেক কারণেই ফ্লপ হতে পারে। তবে, বিশাল বাজেট নিয়ে মাঠে নামার পর ফ্লপ হলে কষ্টটা একটু বেশিই। এমনই কিছু সিনেমা নিয়ে আমাদের এবারের আয়োজন।

  • জাব হ্যারি মেট স্যাজাল

কিং খানও ফ্লপ হতে পারেন। নি:সন্দেহে বিস্ময়কর এক ব্যাপার। এমনই ঘটনা ঘটেছিল আনুশকা শর্মার সাথে অভিনীত ‘জাব হ্যারি মেট স্যাজাল’-এ। ১১৯ কোটি রুপি বাজেটের সিনেমা আয় করেছিল মোটে ৬১ কোটি রুপি।

  • জাগ্গা জাসুস

তারকাবহুল ‘জাগ্গা জাসুস’ ফ্লপ হয়েছিল। ক্যাটরিনা কাইফ ও রণবীর কাপুরের নতুন ঘরানার এই সিনেমাটি দর্শক কেন যেন গ্রহণ করেনি। ১৩১ কোটি রুপির সিনেমার বক্স অফিস আয় মাত্র ৫৩ কোটি রুপি।

  • রাঙ্গুন

সাইফ আলী খান, শহীদ কাপুর ও কঙ্গনা রনৌত – এরপরও বক্স অফিসে বাজে ভাবে ব্যর্থ হয়েছে ‘রাঙ্গুন’। ৮০ কোটি রুপির সিনেমার আয় মাত্র ২০ কোটি রুপি।

  • বেশরম

রণবীরের আরেকটি ব্যর্থতা। বাজেট ছিল ৮৫ কোটি রুপি। আয় হয় মাত্র ৩৫ কোটি রুপি। ঋষি কাপুর ও নিতু সিংও ছেলের ব্যর্থতা কমাতে পারেননি।

  • শানদার

বেশ আলোচিত সিনেমা। কেউ ভাবেনি আলিয়া ভাট ও শহীদ কাপুরের জুটি এভাবে ফ্লপ। ৭৫ কোটি রুপি বাজেটের সিনেমাটি থেকে দর্শক মুখ ফিরিয়ে নেয়।

  • বোম্বে ভেলভেট

তালিকায় আছে রণবীর কাপুরে আরেকটি সিনেমা। এখানে অবশ্য আনুশকা শর্মা ও করণ জোহরের মত বড় তারকাও আছেন। বড় চরিত্রে এটাই নির্মাতা করণের প্রথম অভিনয়। যদিও ১২৫ কোটি রুপির সিনেমাটি মাত্র ২৫ কোটি রুপি আয় করতে সমর্থ হয়।

  • কাইটস

হৃত্বিক রোশনের এই সিনেমা ফ্লপ হওয়াটা ছিল বড় বিস্ময়ের ব্যাপার। ‘কাইটস’ কি না ছিল। গান, চরিত্র, বাজেট, দারুণ বাজেট। ছিল না কেবল ভাল একটা স্ক্রিপ্ট। আর  এজন্যই ১৫০ কোটি রুপি জলে যায়!

  • সাওয়ারিয়া

সঞ্জয় লীলা বনসালীর এই সিনেমা দিয়েই রণবীর কাপুর ও সোনম কাপুরের আগমণ ঘটে বলিউডে। বিশেষ চরিত্রে ছিলেন স্বয়ং সালমান খান। যদিও, সিনেমাটি ডুবে যায় বক্স অফিসে। যদিও, শুরুর সেই বিপর্যয় কাটিয়ে উঠতে পেরেছেন রণবীর ও সোনম।

  • ব্লু

অক্ষয় কুমার, সঞ্জয় দত্ত, লারা দত্ত ও জায়েদ খান অভিনীত সিনেমাটি ছিল ২০০৯ সালে নির্মিত সবচেয়ে খরুচে সিনেমা। তবে, সিনেমাটিতে স্ক্রিপ্ট ছিল যাচ্ছেতাই। তাই ১২৯ রুপির সিনেমাটি দর্শকপ্রিয়তা পায়নি।

  • রাম গোপাল ভার্মা কি আগ

এটাই সম্ভবত বলিউডের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় ফ্লপ। ভাল একটা স্ক্রিপ্ট ছিল অবশ্যই, স্বয় ‘শোলে’র রিমেক বলে কথা। কিন্তু, স্টোরি টেলিং ছিল যাচ্ছেতাই। ফলে সিনেমাটি মাঠে মারা যায়। কি ভেবে যে স্বয়ং অমিতাভ বচ্চন সিনেমাটিতে কাজ করতে রাজি হয়েছিলেন – সেটা আজো বিশাল এক রহস্য।

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।