কার হাসি কে হাসে!

চলচ্চিত্রে স্ক্রিপ্ট বাছাইয়ে বিচক্ষণতা শিল্পীদের একটা বিশেষ যোগ্যতা। স্ক্রিপ্ট আর ছবি এক নয়। স্ক্রিপ্ট পড়ে অনেক সময় বোঝা যায় না যে রুপালি পর্দায় ছবিটি কেমন হবে। যারা বুঝতে পারেন তারাই ক্যারিয়ারে যুক্ত করতে পারেন সাফল্যের নিত্যনতুন পালক। আবার অনেক সময় সিডিউল জটিলতা, সহশিল্পীর সাথে ব্যক্তিগত তিক্ত সম্পর্ক,পারিশ্রমিক, চরিত্র পছন্দ না হওয়া কিংবা অন্য কোন কারণে স্ক্রিপ্ট পছন্দ হলেও অনেকে ফিরিয়ে দেন অফারটি। এমনি কিছু ছেড়ে দেওয়া চরিত্র নিয়ে এই আয়োজন।

১.

শহীদুল্লাহ কায়সারের কালজয়ী উপন্যাস ‘সারেং বউ’ নিয়ে ছবি নির্মাণ করেন আব্দুল্লাহ আল মামুন। নবীতুন চরিত্রে তাঁর প্রথম পছন্দ ছিল ফেরদৌসী মজুমদার। অনেক পীড়াপীড়ির পরেও রাজি না হওয়ায় পরিচালক কবরীকে নিয়ে শুটিং শুরু করেন।তারপরের ঘটনা তো ইতিহাস। কবরীকে এখনো গ্রামবাংলায় অনেকে সারেং বউ হিসেবেই চেনে।

২.

জাতিসংঘ থেকে পুরষ্কৃত ‘পদ্মা নদীর মাঝি’ ছবির লাস্যময়ী কপিলা চরিত্র নিয়ে গৌতম ঘোষ প্রথম আসেন সুবর্ণা মোস্তফার কাছে। সুবর্ণা ছেড়ে দেওয়ায় কপাল খুলে রুপা গাঙ্গুলী ও চম্পার। অন্যদিকে কপাল পোড়ে মমতা শংকরের। যৌথ প্রযোজনার ছবি হওয়ায় দুই নায়িকা দুই দেশ থেকে নিতে চেয়েছিলেন পরিচালক। কপিলা চরিত্রে ভারতীয় নায়িকা চলে আসায় বাধ্য হয়ে মালা চরিত্রে প্রথম পছন্দ মমতা শংকরকে বাদ দিয়ে বাংলাদেশের চম্পাকে নেয়া হয়েছিল।

৩.

সামাজিক সচেতনতামূলক ‘মেঘলা আকাশ’ ছবির কেন্দ্রীয় চরিত্রে নারগিস আক্তারের প্রথম পছন্দ ছিল তাঁর ঘনিষ্ঠ বান্ধবী দিতি। দিতি ছেড়ে দেওয়ায় আকাশের চাঁদ হাতে পান প্রিয়দর্শিনী মৌসুমী। এ ছবি দিয়েই তিনি তাঁর প্রথম ও বিতর্কহীন একমাত্র জাতীয় পুরষ্কার অর্জন করেন। (পরের দু’টি জাতীয় পুরষ্কার তুমুল বিতর্কিত, দুটোই ছিল পার্শ্বচরিত্র)।

৪.

শাবনূর এর ছেড়ে দেওয়া ছবির লিস্ট একটু বড়। ওনার খামখেয়ালী স্বভাব ছবি নির্বাচনেও প্রভাব ফেলেছে।সৈয়দ ওয়াহিদুজ্জামান ডায়মন্ড-এর ‘নাচোলের রাণী’ ও চাষী নজরুল ইসলামের ‘সুভা’ ছেড়ে দেওয়া তাঁর ক্যারিয়ারের অন্যতম ভুল। ছেড়ে দেওয়ায় লোভনীয় চরিত্র দু’টি চলে যায় যথাক্রমে শাহানা সুমি ও পূর্ণিমার কাছে।

৫.

সালমান শাহ’র সাথে মনোমালিন্যের কারণে ‘স্বপ্নের ঠিকানা’ ছবিটি ছেড়ে দেন মৌসুমি।সুবর্ণ সুযোগটি চলে আসে শিশির স্নাত নায়িকার কাছে। ছবিটি সুপার-ডুপার হিট হয়, শাবনূরের অভিনয়ও প্রশংসিত হয় সমালোচকদের কাছে।

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।