বলিউড, মেহজাবিনের কান্না ও আমাদের পরিচালকরা

বলিউডের সালমান খান যদি খুব বাজে গল্পের সিনেমাতেও কাজ করে, সেই ছবিও ১০০ কোটি রুপি কামাবে। কেন বলেন তো?

কারণ, সালমান খান এর একটা ফ্যান বেজ আছে, যারা শুধু সালমান খানকে দেখতেই যায়৷  আর সেই সংখ্যাটা এতোই বেশি যে ১০০ কোটি আরামসে আয় করে ফেলে৷ তার মানে কি সেই ছবিটা খুব ভাল? ছবি কেমন সেটার মোটামুটি ভালো একটা ধারনা পাওয়া যায় আইএমডিবি রেটিং দেখলে।

এবার আসি গানের ক্ষেত্রে, দেখবেন হিন্দি গানের আইটেম গান গুলোতে ভিউয়ের পরিমান অনেক বেশি৷  তার মানে কি ওগুলোই সবচাইতে ভাল গান? নাহ!

এমন হাজারো গান আছে যেগুলোর সুর, কথা, কম্পোজিশন অসাধারণ৷ কিন্তু সে গান গুলোর ইউটিউব ভিউ দেখবেন কম৷ বাংলাদেশের অপরাধী গানটার কথাই ধরেন৷ এর ইউটিউব ভিউ রীতিমত আকাশচুম্বী৷ কিন্তু অনেক গুনী শিল্পীর কালজয়ী গানগুলোতে ভিউ নেই৷ সেটার অনেক অনেক কারণ আছে৷ সেটা অন্য কোনোদিন বলবো।

এবার আসি বাংলা নাটকের কথায়, ইউটিউবের বদৌলতে বাংলা নাটকের দর্শক এখন অনেক বেশি৷ ভালো লাগে এটা ভেবে যে কোলকাতায় ও বাংলা নাটকের প্রচুর দর্শক।  কিন্তু এবার ঈদে দর্শকদের অভিযোগ অনেক বেশি৷

  • এর মধ্যে সবচাইতে ‘কমন’ কিছু অভিযোগের কথা বলছি।
  • আফরান নিশো আর তানজিন তিশা জুটি বেঁধে এতো নাটক কেন? এক ঘেঁয়ে লাগে না!
  • অপূর্ব-মেহজাবিনের ক্ষেত্রেও একই কথা খাটে। তার ওপর গল্পেও খুব একটা নতুনত্ব নেই।
  • অধিকাংশ নাটকেরই মূল বিষয়বস্তু হল প্রেম, বিচ্ছেদ ইত্যাদি৷
  • নাটকের স্ক্রিপ্ট নিন্মমানের৷
  • মেহজাবিন অধিকাংশ নাটকেই কাঁদে কেন?

প্রথম দু’টো অভিযোগ একই।  আর সব অভিযোগগুলোই একটা অপরটার সাথে জড়িত৷ একথা সত্যি যে টিভি খুললেই এই চার জনের নাটকই চোখে পড়বে বেশি৷  এমনকি এখন এই লেখা পড়তে পড়তে আপনি চ্যানেল ঘুরালে এদের কোন এক জুটির নাটক হয়তো চোখে পড়বে৷ এই অভিযোগটা  থাকত না যদি দর্শক নাটকে, নাটকের বিষয়ে,  স্ক্রিপ্টে ভার্সাটাইলিটি পেতো৷

অপূর্বকে ১০ টা নাটকে ১০ ভাবে দেখলে দর্শক সে নাটকগুলো অবশ্যই দেখবে৷ কিন্তু ১০ টা নাটকেই যদি দেখি অপূর্ব মেহজাবিনের সাথে প্রেম করেই যাচ্ছে করেই যাচ্ছে, মেহজাবিন কেদেই যাচ্ছে কেদেই যাচ্ছে দর্শক তখন অভিযোগ, সমালোচনা করবেই৷

ভালো গল্পের ছবি না হওয়াতে বলিউড ও এখন হুমকির মুখে। সাউথের তামিল তেলুগু ভাষা না বোঝা সত্বেও আমরা সাবটাইটেল দিয়ে হলেও ওই ছবি গুলো দেখছি৷ কেন দেখছি? কারণ আমরা ভালো কিছু,  ভিন্ন কিছু দেখতে চাই।

বান্নাহ, রাজ, অমি, আরিয়ান-সহ বর্তমান সময়ের পরিচালকদের অনেকেই স্যোশাল মিডিয়াতে আছেন। অভিযোগগুলো তারা সরাসরিই দেখার সুযোগ পান। আপনাদেরকে বুঝতে হবে দর্শক আপনাদের কাজ পছন্দ করে দেখেই সমালোচনা অভিযোগ করে। না দেখলে অভিযোগও থাকত না।

আপনাদের কাছে অনুরোধ, দয়া করে নাটকের ভালো মন্দ ইউটিউবের ভিউ দিয়ে বিচার করবেন না৷  নিজেদেরকে নির্দিষ্ট গন্ডিতে আটকে ফেলবেন না৷ নিজেদের কেও ভাঙুন আর অভিনেতা-অভিনেত্রীদেরও ভাঙতে সুযোগ দিন। নাটকের কাহিনীতে ভিন্নতা আনুন। এতে আমাদের ইন্ডাস্ট্রির, অভিনেতা-অভিনেত্রী পরিচালক সবার জন্যই মঙ্গল৷

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।