সুন্দর সম্পর্কগুলো আছে বলেই জীবন সুন্দর

সম্পর্ক অনেক রকম হয়। অনেক সময় এটা খুব জটিল একটা ব্যাপার। কখনো আবার এটা খুবই সুন্দর আর রঙিন। চলে যাওয়া কারো স্মৃতি আকড়ে থাকার মাঝেও একটা সৌন্দর্য্য আছে। আবার অপরিচিত কাউকে আস্তে আস্তে নিজের করে নেওয়ার মাঝেও আছে একটা দারুণ মাধুর্য্য।

অনেকগুলো সুন্দর সম্পর্কের গল্প আর স্বপ্নের শহর ব্যাঙ্গালোর – এই নিয়েই আবর্তিত হয়েছে ‘ব্যাঙ্গালোর ডেয়জ’ ছবির গল্প। ছবির মূল চরিত্রে আছেন তিন জন কাজিন। ছোটবেলা থেকে তাঁরা একই সাথে বড় হলেও তারা তিনজন তিনটি ভিন্ন জগতের মানুষ।

ছবির ঘটনাক্রম আর জীবনের নানা পালাবদলে তাঁদের সাথে জড়িয়ে যায় আরেক অনেকগুলো মানুষের গল্প। ছবিতে জীবনের জয়োগান গেয়েছেন পরিচালক, বলতে চেয়েছেন, ‘সুন্দর সম্পর্কগুলো আছে বলেই জীবন সুন্দর।’ ভারতের ইতিহাসে জীবনের এত নান্দনিক জয়োগান আর খুব কম ছবিই গাইতে পেরেছে!

মালায়ালাম এই ছবিটা সত্যিকার অর্থেই ছিল তারকাবহুল। কেন্দ্রীয় তিন চরিত্রে ছিলেন দুলকার সালমান, নিভিন পাউলি ও নাজরিয়া নাজিম। তারাই হলেন তিনজন কাজিন। আরো ছিলেন অভিনয়ের দুই দিকপাল ফাহাদ ফাসিল ও পার্বতী। ছোট একটা অতিথি চরিত্রে ছিলেন নিথিয়া মেনন।

ছবিটির একটা ব্যাপার না বললেই নয়। আর তা হল এর মনোমুগ্ধকর সিনেমাটোগ্রাফি। পুরো ছবিটা যেন গল্পের মত করে একটু একটু করে এগিয়েছে। কখনোই বিরক্ত লাগার কোনো প্রশ্নও ওঠে না। স্টোরি টেলিংয়ে শতভাগ নম্বর পাবেন নির্মাতা অঞ্জলি মেনন।

এটা মূলত অনেকগুলো সম্পর্কের মেল বন্ধনের ছবি হলেও এখানে একাধারে ভালবাসা ও সংবেদনশীলতার কথাও বলা হয়েছে। সিনেমাটা খুবই তারুণ্য নির্ভর আর রঙিণ। সদ্য ফুটে ওঠা ফুল যতটা সতেজ, ছবিটাও ততটাই সতেজ।

ছবির গল্পতে বাড়তি কিছু নেই। তাই বলে এটা মোটেও প্রেডিক্টেবল নয়। মানে অল্প একটু দেখেই বাকিটা বুঝে ফেলা সম্ভব নয়। সাসপেন্স আছে, ছোটখাটো টুইস্টও আছে।

২০১৪ সালে মুক্তি পাওয়া ছবিটি মালায়ালাম ছবির ইতিহাসেরই অন্যতম ব্যবসাসফল ছবি। হায়দারাবাদে টানা দুই মাস থিয়েটারে চলেছিল মাত্র ১০ কোটি রুপি বাজে নির্মিত ‘ব্যাঙ্গালোর ডেয়জ’। এটা এতটাই আলোচিত ছিল যে, সেবার এই ছবিটি বিভিন্ন মঞ্চে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে মোট ২৯ টি ভিন্ন ভিন্ন পুরস্কার জয় করে।

ছবিটা খুবই অনুপ্রেরণাদায়ক। বন্ধু, পরিবার কিংবা প্রিয় মানুষদের সাথে দেখেন কি না দেখেন, ছবিটা দেখলে একজন মানুষ তার জীবনে বন্ধু, পরিবার ও প্রিয় মানুষদের গুরুত্বটা হাড়ে হারে টের পারে।

‘ব্যাঙ্গালোর ডেয়জ’ প্রচণ্ড বাস্তবধর্মী আর জীবনমুখী একটা গল্প। এই ছবি আপনার জীবনকে ভালবাসতে বাধ্য করবে, এই ছবি আপনাকে স্বপ্ন দেখাবে। খাদের কিনারায় দাঁড়িয়ে থাকা কাউকেও অনুপ্রেরণা দেবে।

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।