‘বন্ধন’ নামের নস্টালজিয়া ও বাংলাদেশের মেগা সিরিয়াল

ভিডিওটা একটা সময় খুব পরিচিত ছিল। একুশে টেলিভিশনে আসতো। তখন নব্বই দশকের শেষভাগ। সেসময়কার ঢাকা, সময়ের সেরা সব কুশীলব, মোহনীয় পারিবারিক বন্ধনের গল্প, অর্নবের গান – সব মিলিয়ে প্রোমোটা ভুলে যাওয়া মুশকিল।

ফেসবুকের সুবাদে ‘বন্ধন’ নাটকের প্রোমো বারবারই আমাদের চোখে পড়ে। বন্ধন নাটক হল বাংলা নাটকের ইতিহাসের অন্যতম বর্ণাঢ্য একটা অধ্যায়। বলা যায়, ‘বন্ধন’ দিয়ে এখানে মেগাসিরিয়াল প্রতিষ্ঠা পায়৷

এত অমায়িক কাহিনী আর অভিনয়কে বলা যায় বাংলা নাটকের স্বর্ণযুগের শেষ স্মৃতিচিহ্ন। এখনো স্মৃতিতে নাড়া দিয়ে যায় পুরনো সেই ধারাবাহিক নাটক। পুরো পরিবার এক হয়ে দেখতো সেই নাটক।

ড্রইংরুম বিনোদনে এক পশলা বৃষ্টির মত এসেছিল একুশে টিভি। ডিশ ছাড়াও দেখা যেত এই স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেলটি। ফলে, বিটিভির দর্শক ইটিভিমুখী হয়েছিল। বিরাট দর্শক জনপ্রিয়তা পেয়েছিল ‘বন্ধন’। আজো সেই নস্টালজিয়ায় বুঁদ হয়ে রয়েছে দর্শকরা।

জাহিদ হাসান, বিজরী বরকতুল্লাহ, তাজিন আহমেদ, ইন্তেখাব দিনার, নাতাশা হায়াত, শামস সুমন, শম্পা রেজা, শারমিন শিলারা ছিলেন। আবুল হায়াত, শর্মিলী আহমেদ, পীযূষ বন্দোপাধ্যায়, চিত্রলেখা গূহ, তুষার খানদের ক্যারিয়ারেও অন্যতম আলোচিত কাজ এই ‘বন্ধন’। অর্ণবের গাওয়া আবহ সঙ্গীতটিও মন ছুয়ে যেত, এখনো যায়। এটা দিয়েই প্রথমবারের মত পরিচালনায় এসেছিলেন আফসানা মিমি।

যদিও ২০০২ সালে একুশে টিভির সম্প্রচার বন্ধ হয়ে যাওয়ায় নাটকটির প্রচার বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। একুশে টেলিভিশন পরে ফিরেছিল, বন্ধন আর ফেরেনি। অসমাপ্ত ধারাবাহিক বলে, ডিভিডিতেও আসেনি। তবে, ‘বন্ধন’ ধারাবাহিকটি টেলিভিশন মিডিয়ায় তৈরি করে দীর্ঘ ধারাবাহিক নির্মাণের চল।

আজো আমাদের এখানে ধারাবাহিক নাটক হয়। মেগা সিরিয়ালের নামে চলে অহেতুক গল্পকে টেনে টেনে বড় করার মিছিল। ভারতীয় সিরিয়ালের অনুকরণ হয় বিস্তর, গোঁজামিলের গল্প, নিম্নমানের নির্মান তো আছেই। আগের সুদিন আর নেই। সুতোটা ছিড়ে গেছে, তিলে তিলে গড়ে ওঠা বন্ধনটা ভেঙে আছে।

তাই তো গবেষণা বলে এখন নাকি দেশের শতকরা ৭০ ভাগ মানুষ দেশীয় টেলিভিশন চ্যানেল দেখেন না। পাবলিক ইন্টারেস্ট না আদায় করতে না পারলে একটা ইন্ডাস্ট্রি চলবে কি করে? – এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে খুঁজতে আর ‘বন্ধন’-এর আবহ সঙ্গীতের নস্টালজিয়ায় ডুবেই যেন ভাবনাটা শেষ না হয়ে যায়!

ব্যস্ত শহরে, ঠাস বুনোটের ভিড়ে,

আজো কিছু মানুষ, স্বপ্ন খুজে ফেরে…

ক্লান্ত শরীরে, মান অভিমানে,

থমকে থাকা এ মন।

বেঁচে থাকার আদিম সুখে, স্বপ্ন যোগায়,

এ বন্ধন, এ বন্ধন, এ বন্ধন, এ বন্ধন…

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।