ভাগ্যের নির্মম পরিহাস: অভিনেতা থেকে সিকিউরিটি গার্ড!

জীবনটাই এমন, আজ আপনি রাজা তো কাল আপনি ভিখারী। পেশাদার জীবনটা হল হাতের পাঁচ আঙুলের মত। এখানে সব সময় একইরকম কাটে না। কখনো উত্থান আসে, কখনো বা আসে পতন। খুব দ্রুতই যেন পাল্টে যায় দৃশ্যপট।

এই বিষয়টা সাভি সাধুর জীবনের সাথে কি দারুণ ভাবেই না মিলে যায়! যে বলিউডে একটা সুযোগের জন্যই সবাই হাপিত্যেশ করে, সেখানে তিনি থিতু হয়েছিলেন। অথচ আজ তিনি নিতান্তই এক সিকিউরিটি গার্ড।

বলিউডে আরো অনেকের মতই মডেলিং দিয়ে ‍শুরু তাঁর ক্যারিয়ার। দাপটের সঙ্গে কাজ করেছেন থিয়েটারেও। সেখান থেকে আসেন সিনেমায়। স্বনামধন্য নির্মাতা অনুরাগ কাশ্যপের সাথে ব্যাটে-বলে মিলে গিয়েছিল। তাঁর অধীনেই প্রথম ‘পাঁচ’ সিনেমাটি সাইন করেন।

স্কুলজীবন তাঁর কেটেছে লখনৌতে। সেখান থেকে চন্ড্রিগড়ে আসেন গ্র্যাজুয়েশনের জন্য। তখনই প্রথম মডেলিংয়ের প্রস্তাব পান। পরে লখনৌতে ফিরে আইন বিষয়ে পড়াশোনা শুরু করেন। তখনই থিয়েটারে যোগ দিয়েছিলেন। মুম্বাইয়ে আসা-যাওয়া করা তার জন্য বেশ সহজই ছিল। কারণ, তার ভাই চাকরি করতেন এয়ার ইন্ডিয়াতে। সেই সুবাদে নিয়মিতই প্রযোজক-পরিচালকদের কাছে ধরনা দিতেন। তখনই আলাপ হয় অনুরাগ কাশ্যপের সাথে।

‘গুলাল’, ‘ব্ল্যাক ফ্রাইডে’ কিংবা ‘পাতিয়ালা হাউজ’-এর মতো ছবিতে অভিনয় করেছিলেন তিনি। সহ-অভিনেতা হিসেবে পেয়েছেন অক্ষয় কুমার, ঋষি কাপুর কিংবা ডিম্পল কাপাডিয়াদের। সুভাস ঘাই কিংবা যশ চোপড়াদের পেয়েছেন পরিচালক হিসেবে। প্রশংসাও কুড়িয়েছিলেন। তবে, স্টারডামের শিখরে পৌঁছেও আজ তিনি নেমে এসেছেন বাস্তবের মাটিতে।

কি করে এমন হল? তাঁর জীবনের ওপর দিয়ে বয়ে গেছে ঝড়। স্ত্রীকে হারিয়েছেন, হারিয়েছেন বাবা-মাকেও। শরীরও ভেঙে গিয়েছে অনেকটাই। এখন তিনি পুরোপুরিই নি:সঙ্গ। বললেন, ‘স্ত্রীকে হারানোর শোকটা আমি আর কাটিয়ে উঠতে পারিনি।’

সব হারিয়ে তাই বেছে নিয়েছেন নিভৃত এক মানবেতর জীবন। একটি হাউজিং সোস্যাইটিতে ১২ ঘণ্টার শিফটে নিরাপত্তাকর্মী হিসেবে কাজ করছেন সাভি সিধু। সাধুকে শুভকামনা জানিয়েছেন অনুরাগ কাশ্যপ। তিনি এক টুইটে লিখেছেন, ‘অনেক অভিনেতাই আছেন, যাদের হাতে কোনো কাজ নেই। অভিনেতা হিসেবে সাভিকে আমি সম্মান করি। তিনবার আমি ওকে কাস্ট করেছি। ও যে জীবনটা বেছে নিয়েছে, তার প্রতিও আমার শ্রদ্ধা রয়েছে। কোনো কাজ না থাকার চেয়ে কিছু একটা করে বাঁচাটা ভাল। কোনো কাজই পৃথিবীতে ছোট নয়।’

 

ইন্ডাস্ট্রিতে যেন তিনি আবারো ফিরে আসতে পারেন, সেজন্য সাহায্যের আশ্বাস দিয়েছেন সময়ের অন্যতম প্রতিভাবান অভিনেতা রাজকুমার রাও। তিনি এক টুইটে লিখেছেন, ‘সাভি সিধুর গল্পটা বেশ অনুপ্রেরণাদায়ক। সিনেমায় আপনার কাজ সব সময়ই আমার পছন্দ। অবশ্যই সিনেমার কাস্টিং করেন, এমন যেসব বন্ধু আমার আছেন, তাদের সাথে আপনার ব্যাপারে আলাপ করবো।’

তবে, সাভির সবচেয়ে বড় উপকারটা করেছেন গায়ক মিখা সিং। তিনি কাজের ব্যবস্থা করেছেন সাভিকে। এখন ভূষণ প্যাটেলের নির্মানে ‘আদাত’ ছবিতে দেখা যাবে তাঁকে। এখানে কেন্দ্রীয় চরিত্রে থাকবেন বিপাশা বসু ও তাঁর স্বামী করণ সিং গ্রোভার।

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।