অপূর্ব: সময়ের সেরা নাকি একঘেঁয়ে?

২০০৬ সাল। বিটিভির ঈদ আয়োজনে ‘শেষ প্রান্তে’ ও ‘কথা ছিল অন্যরকম’ নাটকের মধ্যে দিয়ে পরিচিত হলাম এক নবীন অভিনেতার সাথে। প্রথম পরিচয়ে মুগ্ধ, এরপর রমিজের আয়না দেখার পর তিনি আমাদের অন্যতম প্রিয় অভিনেতা।

এসব ছাড়াও এক্স ফ্যাক্টর, ইট কাঠের খাঁচা, এক্স ফ্যাক্টর ২ সহ বহু নাটকের মাধ্যমে হয়ে উঠলেন সময়ের অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেতা। রোমান্টিক চরিত্রে হয়ে উঠেন অনন্য। দর্শককূলে একটা প্রজন্ম তাঁর বেশ ভক্ত বনে যান। গত বছর থেকে তিনি আবার নতুন করে আলোচনায়। বাংলা নাটকে স্মরনকালের আলোচিত নাটক দিয়ে হয়ে ওঠেন সবচেয়ে জনপ্রিয় টিভি অভিনেতা। তিনি ‘বড় ছেলে’ খ্যাত নাট্যঙ্গনের অন্যতম সেরা জনপ্রিয় অভিনেতা জিয়াউল ফারুক অপূর্ব।

২০০২ সালে ‘ইউ গট দ্য লুক’ প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়ে মিডিয়ায় জগতে পদাপর্ন। গাজী রাকায়েতের ‘বৈবাহিক’ নাটক হচ্ছে প্রথম নাটক, বিজ্ঞাপন জগতে পা রাখেন অমিতাভ রেজার বিজ্ঞাপন দিয়ে। এরপর ধীরে ধীরে জনপ্রিয়তা বাড়তে থাকে। কিন্তু আচমকা ব্যক্তিগত জীবনে ঝড় আসায় অনিয়মিত হয়ে পড়েন টেলিভিশন জগতে।

আবার নিজেকে তৈরি করে নাট্যজগতে ফিরে এসেছেন বছর চারেক আগে। নিজের প্রত্যাবর্তনে বেশ সফল তিনি। ভালোবাসার পঙতিমালা, কথোপকথন, বিহবল দিশেহারা, নীল প্রজাপতি, ইন এ রিলেশনশিপসহ বেশ কয়টি জনপ্রিয় নাটকে অভিনয় করেছেন। বর্তমানে অন্যতম জনপ্রিয় টিভি অভিনেতা তিনি।

গত বছর বড় ছেলে বাদেও রয়েছে ব্যাচ ২৭ সিরিজ, মার্চ মাসে শুটিংসহ বেশ কিছু উল্লেখযোগ্য নাটক। এই বছর আছেন ক্যারিয়ারের সুসময়ে। বেকার, তোমার জন্য, সংসার, তনিমা থেকে এই ঈদে শেষ পর্যন্ত, জলসাঘর, হয়তো তোমারই কাছে যাবো সহ বহু নাটক দিয়ে কাটাচ্ছেন ব্যস্ত সময়।

চয়নিকা চৌধুরীর নাটকে সবচেয়ে বেশি অভিনয় করলেও তাকে ভালো ব্যবহার করেছেন শিহাব শাহীন। আর তাকে প্রত্যাবর্তন করেছেন মিজানুর রহমান আরিয়ান। যার সাথে গড়ে উঠেছে বেশ ভালো জুটি, আশফাক নিপুণের সাথে করেছেন প্রথমবারের মত নাটক।

এই মুহুর্তের সবচেয়ে জনপ্রিয় অভিনেতা তিনি, তবে রয়েছে অভিযোগ ও। সবচেয়ে বড় যে অভিযোগ সেটা হচ্ছে তিনি নিজেকে ভাঙছেন না। প্রায় একই চরিত্রে বারবার দর্শকদের সামনে আসছেন। এই দুর্বলতা কাটিয়ে উঠতে এই জায়গাটা নিয়ে তাঁর কাজ করাটা জরুরী।

ক্যারিয়ারে কাজ করেছেন তারিন, অপি করিম, রিচি, শ্রাবন্তী থেকে মম, বিন্দু, প্রভা, মিথিলাদের সঙ্গে। কারো কাছে তিনি একঘেঁয়ে, কারো কাছে সময়ের সেরা। লম্বা সময় ছোট পর্দায় এক চেটিয়ে জনপ্রিয়তা পেয়ে যাওয়া অভিনেতাদের ক্ষেত্রে এই সময়ে তাঁর নাম ওপরের দিকেই থাকবে।

তবে তিশার সঙ্গে দারুণ জুটি গড়ে ওঠার প্রাক্কালেই ভেঙে যায়। অনেক বছর তাঁরা একসাথে কাজ করছেন না। দু’জনকে আবার একসঙ্গে দেখার অপেক্ষায় আছি। ‘গ্যাংস্টার রিটার্ন’ নামে একটি চলচ্চিত্রে অভিনয়ও করেছেন। তবে সেটা ক্যারিয়ারে অন্যতম দূর্বল কাজ। ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই পেয়েছেন মেরিল প্রথম আলো পুরস্কারের মনোনয়ন। তবে, পুরস্কার না পাওয়ার আক্ষেপ ঘুচলো ২০১৭ সালে এসে।

ব্যক্তিগতজীবনে অনেক চড়াই উৎরাইয়েরর পর বিয়ে করেছেন মিডিয়ার বাইরের মানুষ অদিতিকে। এক ছেলের বাবা তিনি। অভিনয়ের পাশাপাশি ব্যবসাতেও সমান উদ্যোগী তিনি। রেস্টুরেন্ট ব্যবসা বাদেও অপূর্ব’র আছে তাঁর নিজস্ব ব্র্যান্ড ‘আর্ময়ার’।

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।