সময়ের সেরা পাঁচ অভিনেত্রী

শেষ বছরটা বলিউড অভিনেত্রীদের জন্য ছিল বেশ খারাপ সময়। প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও দিপীকা পাড়ুকোনের মত সুপারস্টার অভিনেত্রী এ বছরও ছিলো পুরোপুরি অনুপস্থিত। কঙ্গনা রনৌত, বিদ্যা বালানের মত সু-অভিনেত্রীরা উপস্থিত থেকেও বক্স অফিসে কোন কামাল দেখাতে পারেনি। ইন ফ্যাক্ট কোন নায়িকাই এ বছর দর্শকদের ভালবাসায় খুব বেশী সিক্ত হতে পারেনি। তবে মন্দের ভাল সাফল্য যে কয়জন পেয়েছেন সাম্প্রতিক সময়ে তাঁরাই জায়গা পেয়েছেন শীর্ষ পাঁচে।

ক্যাটরিনা কাইফ

এ শতকে যত নায়িকা এসেছেন তার মধ্যে বক্স অফিস সাফল্যে ক্যাটরিনাই সবচেয়ে বেশি সফল। তা সে খানদের নায়িকা হয়েই হোক, কিংবা কুমার-রোশন-কাপুরদের সাথে রোমান্স করেই হোক। শুধুমাত্র আইটেম গানে অভিনয় করেও সে ছবিকে সাফল্য পাইয়ে দিতে সক্ষম ছিলেন। কিন্তু গত ৩-৪ বছর ধরে ক্যাটরিনার ক্যারিয়ারে সেই রমরমা অবস্থা একেবারেই নেই। একের পর এক বক্স অফিস ডিজাস্টার দিয়েছেন এক সময়ে সাফল্যের গ্যারেন্টি দিয়ে আসা এই নায়িকা। এ বছর দুই এক্স-বয়ফ্রেন্ডকে নিয়ে দুইটি ছবি উপহার দিয়েছেন এই জনপ্রিয় নায়িকা। রনবিরের সাথে ‘জাজ্ঞা জাসুস’ ফ্লপ হলেও সালমানের সাথে ‘এক থা টাইগার’ হয়েছে ৩০০ কোটির ব্লকবাষ্টার। এ ছবি দিয়ে তিনি প্রথম বারের মত ৩০০ কোটির ক্লাবেও প্রবেশ করলেন। সুতরাং বলাই বাহুল্য যে এই এক ছবির সাফল্যই ক্যাটরিনাকে আবার নাম্বার ওয়ান অবস্থানে নিয়ে এসেছে।

আলিয়া ভাট

চলমান দশকে যত নায়িকা এসেছে তাদের সবাইকে অনেক আগেই ছাড়িয়ে গেছে মহেশ ভাট কন্যা। তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বীতা এখন দিপীকা, ক্যাটরিনার মত তারকা অভিনেত্রীদের সাথে। এ বছর তাঁর একমাত্র ছবি বরুণ ধাওয়ানের বিপরীতে ‘বদ্রিনাথ কি দুলহানিয়া’ সুপার হিট ব্যাবসা করেছে। এ ছবি দিয়ে ১০০ কোটির ক্লাবে আরো একবার প্রবেশ করলেন হালের ক্রেজ এই অভিনেত্রী।

ভূমি পেদনেকার

‘দম লাগাকে হ্যাইসা’ খ্যাত অভিনেত্রী এ বছর পুরোদস্তুর হিট অ্যান্ড ফিট হয়ে পর্দায় এসেছেন এবং দর্শক তাকে দারুণ ভাবে গ্রহন করেছে। এ বছর তাঁর দুইটি ছবি মুক্তি পেয়েছে এবং দুটো ছবিই বক্স অফিস, সমালোচকদের মন দুই’ই জয় করেছে। অক্ষয় কুমারের বিপরীতে টয়লেট-এক প্রেম কথা দিয়েছে তাকে ১০০ কোটির সুপার হিটের স্বাদ আর ছোট বাজেটের কমেডি শুভ মঙ্গল সাবধান দর্শকরা হাততালি দিয়ে উপভোগ করেছে। যদিও এখন পর্যন্ত মাত্র ৩ টি ছবি মুক্তি পেয়েছে তার কিন্তু তিনটি ছবিই বক্স অফিস সাফল্য এবং দর্শক-সমালোচকদের মন দুই’ই সমান ভাবে জয় করতে সক্ষম হওয়ায় এটা এখন বলাই যায় যে ভূমি বলিউডে হারিয়ে যেতে আসেনি।

পরিনীতি চোপড়া

এ বছর জুনিয়র পিসির কাম ব্যাকের বছর বলাই যায়। বছরের শুরুতে মুক্তি পাওয়া ‘মেরি পেয়ারি বিন্দু’ বক্স অফিসে ব্যর্থ হলেও দিওয়ালি’র ছবি গোলমাল এগেইন তাকে দারুণ রকম সাফল্য দিয়েছে। ছবিটি ২০০ কোটির ব্লকবাস্টার হয়েছে। আর এ ধরণের বক্স অফিস সাফল্য খুব কম নায়িকাই এখন পর্যন্ত দেখতে পেরেছে।

তাপসি পান্নু

নতুনদের মধ্যে এ বছর তাপসি পান্নু কিছুটা হলেও সফল ছিলো। মুক্তি পেয়েছে ৪ টি ছবি যার মধ্যে ভরুন ধাওয়ানের বিপরীতে জুড়ুয়া টু তাকে দিয়েছে ১০০ কোটির সুপার হিটের স্বাদ। এ ছাড়া  ‘দ্য গাজী অ্যাটাক’ ছবিটিও মোটামুটি সফল ছিলো। অন্য দুটো ছবি সাফল্য না পেলেও বেশ আলোচিত ছিলো। সব মিলিয়ে নতুনদের মধ্যে সে ২০১৭ এ ভাল একটা অবস্থান তৈরী করতে সক্ষম হয়েছে।

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।