লম্বা দৌড়ের ঘোড়া

ঢাকার নাটকপাড়ায় একটা কথা প্রচলিত আছে। নব্বই দশকে সমসাময়িক আরো তিন অভিনেতার প্রতিদ্বন্দ্বিতার ভিড়ে তিনি কিছুটা পিছিয়ে ছিলেন। আর সেজন্য নাকি তেমন ভালো চরিত্রগুলো পেতেন না।

তবে গত দুই দশকে এসে সেই অপূর্ণতা পূরণ করেছেন। একের পর এক দারুণ কাজে নিজেকে নন্দিত করছেন নাটক কিংবা চলচ্চিত্রে। তিনি সত্যি লম্বা দৌড়ের ঘোড়া। তিনি বাংলাদেশের স্বনামধন্য অভিনেতা শহীদুজ্জামান সেলিম।

উনার ক্যারিয়ার গঠনে তিনটি ধারাবাহিক নাটক বেশ গুরুত্বপূর্ণ, প্রথম নাটক ‘জোনাকী জ্বলে’ তারপর ‘কোথাও কেউ নেই’। এই নাটকে আফসানা মিমির সাথে জুটি বেশ আলোচিত হয়েছিল।

পরবর্তীতে এই জুটি একসাথে পৌন:পুনিক, স্বপ্নযাত্রা, হাউজ ওয়াইফসহ বেশ কিছু নাটকে অভিনয় করেছেন। আরেক জনপ্রিয় নাটক ‘রুপনগর’-এও অভিনয় করেছিলেন। এছাড়া সেলিমের ক্যারিয়ারে আরেকটি উল্লেখযোগ্য নাটকের মধ্যে ‘বাজিকর’ ও ‘কাঁটা’ অন্যতম।

হানিফ সংকেতের পুত্র দায়, শোধবোধ, কিং কর্তব্য, শূন্যস্থান পূর্ণসহ বেশ সংখ্যক নাটকে অভিনয় করেছিলেন। মোস্তফা সারোয়ার ফারুকীর দুই জনপ্রিয় ধারাবাহিক ৫১ বর্তী ও ৬৯ নাটকেও অনেক তারকার ভিড়ে সমুজ্জ্বল ছিলেন। হুমায়ূন আহমেদের উপন্যাস অবলম্বনে অরুন চৌধুরীর জনপ্রিয় ধারাবাহিক নাটক ‘লীলাবতী’ তাঁর ক্যারিয়ারে অন্যতম সফল পালক।

সেলিমের এই নাট্যজগতে দুই যুগের ক্যারিয়ারে উল্লেখযোগ্য নাটকের মধ্যে ইনসমনিয়া, লাল নীল বেগুনী, চোরের বউ, দক্ষিনায়নের দিন, জং কুটুম্বপুর, বক্ররেখা, চিঠি, বক্সার কবি, ভালোবাসি তাই অন্যতম। অভিনয়ের পাশাপাশি পরিচালনাতেও প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন, এমনকি মঞ্চ নাটকেও তার নির্দেশনা সমাদৃত।

নাট্যঙ্গনের পাশাপাশি চলচ্চিত্রেও তিনি সমুজ্জ্বল। প্রথম সিনেমা ফারুকীর ‘মেড ইন বাংলাদেশ’, এই ছবিতে তিনি বেশ আলোচিত হয়েছিলেন। তবে সবচেয়ে বেশি আলোচিত হয়েছিলেন রেদোয়ান রনির ‘চোরাবালি’ তে অভিনয় করে। খল চরিত্রে দুর্দান্ত অভিনয়ের জন্য তিনি বেশ প্রশংসিত হয়েছিলেন।

ঢাকার সিনেমায় খল চরিত্রে হুমায়ুন ফরিদীর অভাব পূরণ হতে যাচ্ছে – এমন কথা তখন ইন্ডা্স্ট্রি বেশ শোনা গিয়েছিল। সে সুবাদে পেয়েছিলেন জাতীয় পুরস্কার, পাশাপাশি উনার ক্যারিয়ারে আরো উল্লেখযোগ্য সিনেমার মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের ছবি মেঘমল্লার, বাপজানের বায়োস্কোপ ও অজ্ঞাতনামা অন্যতম। এছাড়া আরো অভিনয় করেছেন চন্দ্রগ্রহণ, দেবদাস, এই তো প্রেম, ইউটার্ন, পদ্ম পাতার জল, সুলতানা বিবিয়ানা সিনেমায়।

ব্যক্তিজীবনে প্রথম স্ত্রী বিয়োগের পর বিয়ে করেন অভিনেত্রী রোজি সেলিমকে। তাদের সংসারে রয়েছে দু’টি সন্তান। অভিনয়ের পাশাপাশি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন স্টাডিজ বিভাগে অতিথি শিক্ষক হিসেবে কাজ করছেন। এছাড়া নিজের সাবেক ঠিকানা জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ও বাংলাদেশ ফিল্ম এন্ড টেলিভিশন ইনিস্টিটিউটেও অভিনয়ের ওপর ক্লাস নেন তিনি।

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।