রণজি ট্রফি হলে শহীদ জুয়েল ট্রফি কেন নয়?

রণজি ট্রফির কথা কম-বেশি সবারই জানা। মূলত এটা হল ভারতের একটি ঘরোয়া প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেট প্রতিযোগিতা। আয়োজন করে ভারতীয় ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বোর্ড অব কনট্রোল ফর ক্রিকেট ইন ইন্ডিয়া (বিসিসিআই)। উপমহাদেশে এই মানের প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট খুব কমই হয়।

বিভিন্ন শহর ও রাজ্য এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। ইংল্যান্ডের কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশিপ বা অস্ট্রেলিয়ার শেফিল্ড শিল্ডের সমজাতীয় এই প্রতিযোগিতাটির নামকরণ হয়েছেন ওয়ানগরের জাম সাহিব কুমার শ্রী রণজিত সিং জির নামে, যিনি রণজি নামে পরিচিত ছিলেন।

এবার জানা যাক এই রণজিত সিং জি কে ছিলেন, এই রণজিত সিং জি হলেন ব্রিটিশ ভারতের কাঠিয়াওয়ার এলাকার সাদোদারে জন্মগ্রহণকারী নওয়ানগরের শাসক ও বিখ্যাত আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। তিনি ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের পক্ষে টেস্ট ক্রিকেট খেলেছেন।

এছাড়াও, প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় ও কাউন্টি ক্রিকেটে সাসেক্সের প্রতিনিধিত্ব করেন রণজি ডাকনামে পরিচিত রণজিত সিং জি। দলে তিনি,  মূলত ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে ভূমিকা রেখেছেন। পাশাপাশি ডানহাতে স্লো মিডিয়াম পেস বোলিংয়ে পারদর্শী ছিলেন তিনি।

যাই হোক এবার কাজের কথাই আসি, এই লেখাতে রণজিত সিং জির প্রসঙ্গ টানার কারন ভারতের মতো ক্রিকেটের পরাক্রমশালী  দেশের প্রথম শ্রেনীর টুর্নামেন্টের নাম করা হয়েছে ভারতবর্ষে জন্মগ্রহণকারী এই ‘ইংলিশ’ ক্রিকেটারের নামে! তিনি যে ১৫ টা টেস্ট খেলেছেন তার সবগুলোই তো ইংল্যান্ডের হয়ে।

আমাদেরও আবদুল হালিম চৌধুরি শহীদ জুয়েলের মত একজন ছিলেন। ঢাকার ক্রিকেট মাতিয়েছিলেন। ওই আমলে পাকিস্তান ক্রিকেট দলে খেলার সকল যোগ্যতাই ছিল তার।  খেলা হয়নি। চেয়েছিলেন স্বাধীন বাংলাদেশের জার্সি গায়ে দিতে।

সেটাও হয়নি।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালীন ঢাকার কিংবদন্তি ক্র্যাক প্লাটুনের সদস্য ছিলেন । ১৯৭১ সালের ২৯ আগস্ট পাকিস্তানি সেনারা তাঁকে আটক করে। ধারণা করা হয় ৩১ আগস্ট পাকিস্তানি সেনারা ক্রিকেটার জুয়েলকে হত্যা করে।

দক্ষিণ আফ্রিকার বাসিল ডি অলিভেইরা’র সাথে রকিবুল হাসান ও শহীদ জুয়েল।

শহীদ জুয়েলের অবদানের স্বীকৃতি স্বরুপ মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের একটি স্ট্যান্ডের নামকরন করা হয়েছে। প্রতি বছর বিজয় দিবসে প্রদর্শনী ম্যাচের আয়োজন করে থাকে। তাঁর স্মৃতিচারণা, তার প্রতি সম্মান জানানো এখানেই সীমাবদ্ধ থাকে।

এই বিজয় দিবসে চাওয়া, শহীদ জুয়েলের নামে যেন আমাদের প্রথম  শ্রেনীর টুর্নামেন্টের নামকরণ করা হয়। এই চাওয়াটা অমূলক নয় নিশ্চয়ই। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) চাইলে বিষয়টা একটু ভেবে দেখতে পারে।

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।