যেখানে দেখিবে ছাই, উড়াইয়া দেখ তাই

বিশেষ কোনো অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হবার দরকার নেই, কিংবা সারা পৃথিবী চষে বেড়ানোরও কোনো প্রয়োজন নেই। বাড়ির আশপাশটাই একটু ভালো করে খুঁজে দেখুন না! আপনি জানেনও না অথচ আপনার পায়ের তলায়ই বোধ হয় লুকিয়ে আছে কোনো গুপ্তধন। বিশ্বাস হচ্ছে না তো! বিশ্বাস বোধহয় সেই নয়জনেরও হয় নি, যাদের এখন ‘নবরত্ন’ বললেও ভুল হবে না।

অনলাইন ঘেটে কিছু সৌভাগ্যবান মানুষের গল্প পাওয়া যায়, যাদের পায়ের তলায় আক্ষরিক অর্থেই ‘গুপ্তধন’ লুকিয়ে ছিলো। চলুন, দেখে আসা যাক তাঁদের গুপ্তধন আবিষ্কারের ঘটনাগুলো:

ভ্যান গগের চিত্রকর্ম

‘মন্টমাজুরে সূর্যাস্ত‘ নামে ভ্যান গগের আঁকা একটি চিত্রকর্ম বহু বছর ধরে এক নরওয়েজিয়ান কালেক্টরের বাড়ির চিলেকোঠায় পড়ে ছিল। এর পেছনের রহস্য? ১৯০৮ সালে সেই কালেক্টরের একজন অতিথি তাকে বলেছিলেন যে এই চিত্রকর্মটি নকল। কালেক্টর হতাশ হয়ে তা দেয়াল হতে নামিয়ে ফেলেন এবং স্বাভাবিকভাবেই কিছুদিন পর এর কথা ভুলেও যান। কালেক্টরের মৃত্যুর শত বছর পরে, ওই বাড়ির নতুন মালিক ছবিটি খুঁজে পান এবং চিত্রকর্মটি যাচাই করার জন্য বিশেষজ্ঞদের কাছে নিয়ে যান। সেটি যে ভ্যান গগের নিজের হাতে আঁকা চিত্রকর্মই ছিলো, তা নিশ্চয়ই বুঝে গিয়েছেন এতক্ষণে।

অ্যালানের চিঠি

এই ঘটনাটি আক্ষরিক অর্থেই ‘কুড়িয়ে পাওয়ার’। কিছুদিন পূর্বে, এক সাধারণ আমেরিকান পরিবার তাদের বাড়ি সংস্কারের সিদ্ধান্ত নেন। হঠাৎ-ই বাড়ির কর্তা বাড়িতে থাকা এক সিন্দুকে হোঁচট খেয়ে পড়ে যান। চোট কতটা গুরুতর ছিলো, তা অবশ্য জানা যায়নি, তবে সেখানে পড়ে গিয়ে ৫১০০০ ডলার আবিষ্কার করেছিলেন, এই খবর যথেষ্ট আলোড়ন তুলেছিলো। সঙ্গে আরও পেয়েছিলেন ১৯৬০ সালের এক বোতল হুইস্কি এবং একটি বই যার নাম ‘এ গাইড ফর দ্য পেরপ্লেক্সড’। বইয়ের ভেতর অ্যালান নামে এক ব্যক্তির ছবি ছিলো এবং ছবির পেছনে ভিনসেন্ট নামে কোনো একজন তাকে উদ্দেশ্য করে একটি ছোট্ট চিরকুট লিখেছিলেন, ‘অ্যালান, আমার কাছে এমন একটি বই আছে যা আপনার পড়া উচিত।’ এই চিঠি দেখার পর, উক্ত দম্পতি অ্যালানকে খুঁজে বের করার এবং তার সম্পত্তি তাকে ফিরিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। কিন্তু সেই চেষ্টা এখনও সাফল্যের মুখ দেখেনি।

একটি ফ্যাবারজি মূর্তি

২০১৩ সালে, নিউইয়র্কের বাসিন্দা জর্জ ও বেটি ডেভিস তাদের বাড়ির চিলেকোঠা পরিষ্কার করছিলেন, তখন সেখানে তারা একটি ছোট্ট বাক্স খুঁজে পান, যার ভেতরে একটি মূর্তি ছিলো।

বিশেষজ্ঞের তলব পড়ে বাড়িতে এবং আবিষ্কার হয় এটি একটি কসাক সৈনিকের মূর্তি যা রাশান জার ২য় নিকোলাস নিজে তার স্ত্রীর জন্য তৈরি করেছিলেন। ১৯১৮ সালের ঘটনাবলীর পর, মূর্তিটি এক মার্কিন উদ্যোক্তার হাতে আসে এবং ১৯৩৪ সালে তিনি ২২৫০ মার্কিন ডলারে এটি বিক্রি করেন। কার্ল ফ্যাবারজি কেবল ৫০টি মূর্তি তৈরি করেছিলেন যার সবগুলিই দুষ্প্রাপ্য বলে বিবেচিত। নিউইয়র্কের সেই দম্পতি মূর্তিটি ৫.২ মিলিয়ন ডলারে বিক্রয় করেছেন।

চাকরদের ঘর

উত্তরাধিকার সূত্রে, আর্চি গ্রাহাম-পালমার এবং তার স্ত্রী ফিলিপ, ১৮ শতকের শেষদিকে নির্মিত একটি বাড়ি পান। বাড়ি বললে ভুল হবে, ছোটখাটো এক প্রাসাদই বলা চলে। এই বাড়ি পামারের পূর্বপুরুষরা ১৮৩০ সালে নিলামের মাধ্যমে কেনেন এবং দীর্ঘদিন ধরে বাড়িটি জনমানবশূন্য ছিল।

পালমার দম্পতি বাড়িটিকে পুনঃসংস্কারের সিদ্ধান্ত নেন এবং সংস্কারকালে তারা এক কক্ষে একটি বন্ধ দরজা খুঁজে পান। তাদের বিস্ময়ের মাত্রা আকাশে চড়ে যখন তারা এই দরজার পেছনে ৮০ বছরের পুরোনো আসবাবে সজ্জিত এক ভিক্টোরিয়ান রান্নাঘর আবিষ্কার করেন। পরে তারা জানতে পারেন, যুদ্ধের পর এই হেঁসেলঘর বন্ধ হয়ে গিয়েছে। তবে, তার আগে চাকরেরা এই বাড়িতে বাস করত এবং সেখানে রান্নার কাজ সারতো।

গুপ্তচরের গুপ্তস্থান

রেডিট ব্যবহারকারী ল্যাম্বরজ্যাক জানান, তিনি তার ঘরে একটি ছোট দরজা আবিষ্কার করেন, যার পেছনে আরেকটি কোড-লক দরজা দেখা যাচ্ছিলো। এই দরজা ভেঙে তিনি যখন ভেতরে প্রবেশ করেন, তখন তিনি সেখানে একটি শব্দরোধী কামরা দেখতে পান। কামরাটির বিশেষত্ব ছিলো, এটি নানা অদ্ভুতুড়ে জিনিস যেমন: বিভিন্ন ভাষায় লেখা নানা খাম, গয়না, ব্যাংক নোট এবং অদ্ভুত ভিডিওটেপে ভর্তি ছিলো। পরবর্তীকালে বাড়ির মালিক পুলিশের নিকট এই সমস্ত জিনিস অর্পণ করেছিলেন।

একটি কমিক বই

একজন নির্মাণকর্মী ডেভিড গঞ্জালেস, মনিসোটায় তার সদ্য কেনা বাড়িতে কাজ করছিলেন। হঠাৎই বাড়িতে রক্ষিত কাগজপত্রের স্তুপের মধ্যে তিনি হোচট খেয়ে পড়ে যান আর সেখান হতেই বের হয়ে আসে ১৯৩৮ সালের একটি বিরল কমিক বই। সীমিত সংস্করণের এই বইতেই সুপারম্যান প্রথমবারের মতো ছাপা হয়। এই বইটি পরে নিলামে প্রায় ১,৭৫,০০০ ডলারে বিক্রি হয়।

সবুজ স্যুটকেস

গত শতকের ৪০-য়ের দশকে ওহাইও’র এক দম্পতি একটি বাড়ি কেনেন এবং অনেক পরে জায়গাটি পরিষ্কারের জন্য মনস্থির করেন। যখন এই কাজ করছিলেন, বাড়ির একটি কক্ষের ছাদে তারা একটি ছোট লাঞ্চ বক্স খুঁজে পান। বক্সের ভেতরে, ২৫ মার্চ, ১৯৫১ সালের একটি সংবাদপত্র ছিলো। একইসাথে বক্সে ৩ টি মোড়ানো কাগজ ছিলো, যার প্রতিটিতেই কিছু মার্কিন ডলার ছিলো। যার মোট পরিমাণ ছিলো ২৩০০০ মার্কিন ডলার।

বিস্ময়ের এখানেই শেষ নয়। এই ঘটনার সপ্তাহান্তে, সংস্কার চলার সময়ই ওই বাড়িতে আরও একটি বক্স খুঁজে পাওয়া যায়, যেখানে পুরাতন ও দুর্লভ ব্যাংকনোটে ভর্তি আরও ৪৫০০০ ডলার ছিলো।

একটি ‘জাজমেন্ট ডে’ স্ট্যাশ

এক ইমেজার ব্যবহারকারী, তার একাউন্টে প্রায়ই একটি গোপন রুম খুঁজে পাবার গল্প বলতেন। একটি নতুন বাড়ি কেনার ২ সপ্তাহ পর, তিনি তার ঘর পরিষ্কার করছিলেন এবং তখন পাতলা কাঠের উপর হেঁটে যাবার সময় তিনি হোঁচট খেয়ে পড়ে যান।

তিনি এই পাতলা কাঠের পেছনে, দেয়ালে একটি ফাটল লক্ষ্য করেন, যেখানে প্রচুর গোলাবারুদ, বুলেট খুঁজে পান, তবে সেখানে কোন বন্দুক ছিলোনা। তবে ইমেজারের অন্য ব্যবহারকারীরা মনে করেন যে এটি এমন এক ব্যক্তির লুকায়িত স্থান ছিল যিনি দিনশেষ হবার ক্ষণ গুনছিলেন এবং বিশ্বাস করছিলেন যে বুলেট নতুন মুদ্রা হিসেবে পৃথিবীতে আবির্ভূত হবে।

একটি অদ্ভুত চেম্বার

এক সাংবাদিক দম্পতি, জিউসেপ কাদিিলি এবং ভ্যালেরিয়া গিয়েরসো, ইতালির পালের্মোতে একটি পুরনো অ্যাপার্টমেন্ট ক্রয় করেছিলেন। বাড়িটি সংস্কারের সময়, তারা একটি কক্ষে পলেস্তারারর নিচে নীল কিছুর উপস্থিতি লক্ষ্য করেন। আরও গভীরভাবে পর্যবেক্ষণের পরে, তারা সেখানে রূপালী এবং সোনালি বর্ণে লিখিত কিছু আরবি শিলালিপি আবিষ্কার করেন, আদতে যা জাদুবিদ্যার মন্ত্র। শেষতক যা দাঁড়ায়, তাদের পুরো ঘরটিই ওই শিলালিপিতে আচ্ছাদিত ছিলো।

বিশেষজ্ঞরা এই কক্ষকে ‘চেম্বার অব ওয়ান্ডারস’ বলে আখ্যা দেন, যে কক্ষে ১৯ শতকে জাদুবিদ্যা অনুশীলন করা হয়েছে। বিজ্ঞানীরা বলেছেন যে, এটি একটি অনন্য স্থান কারণ এই ধরনের কক্ষগুলো তাদের নিজস্ব সময়েও যথেষ্ট বিরল ছিল।

সমুদ্র সৈকতে হাঁটার সময় এক বান্ডিল ডলার

‘যেখানে দেখিবে ছাই, উড়াইয়া দেখ তাই, পাইলেও পাইতে পারো অমূল্য রতন’, কবির এই কথা তো আর বৃথা প্রলাপ নয়। কে বলতে পারে, রাস্তা দিয়ে হাঁটছেন, কিংবা সৈকতের বালুকাবেলায় বসে আছেন, আপনার আশেপাশেই পড়ে রয়েছে খুব দামি কোনো বস্তু। একটু চোখ-কান খোলা রাখলে, তার মালিক কিন্তু হয়ে যেতে পারেন আপনিও!

ব্রাইটসাইড.মিগিগগ্যাগ.কম অবলম্বনে

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।