যারা ট্রাম্পের প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছিলেন

‘সত্যিই মনে হয়, আমাদের ডেট করা উচিৎ। তুমি আমেরিকার সেরা সুন্দরী, আমি আমেরিকার সবচেয়ে ধনি পুরুষ। আমার মনে হয় লোকে এটা খুব পছন্দ করবে।’ – প্রেসিডেন্ট হওয়ার অনেক আগে এভাবেই অভিনেত্রী ও মডেল ব্রুক শিল্ডকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়েছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।

৫২ বছর বয়সী অভিনেত্রী এই বোমা ফাঁটালেন গত মঙ্গলবার। টেলিভিশনে সম্প্রচারিত ‘ওয়াচ হোয়াট হ্যাপেন্স লাইভ উইদ অ্যান্ডি কোহেন’-এ এসে এতদিন পর সেই খরব ফাঁস করলেন।

আলোচনার সূত্রপাত হয় ১৯৯২ সালের একটি ছবিকে কেন্দ্র করে। সেখানে একটু অনুষ্ঠানে ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ব্রুক শিল্ডসকে কথা বলতে দেখা যায়। তখন কেবলই স্ত্রী মারলা ম্যাপলসের সাথে ছাড়াছাড়ি হয় ট্রাম্পের। তখনই ডেটের প্রস্তাব দেন ট্রাম্প।

ইমা থম্পসন

শিল্ডস বলেন, ‘আমরা একটা সিনেমার সেটে ছিলাম। ঠিক ওর ডিভোর্সের পরই ও আমাকে ডাকে।’ যদিও, সেই ডাকে সারা দেননি ওই সময়ের সারা জাগানো এই অভিনেত্রী। তার জবাব ছিল, ‘আমার বয় ফ্রেন্ড আছে। ও জানলে ব্যাপারটাকে ভাল ভাবে নেবে না।’

প্রেমে প্রত্যাখ্যাত হওয়ার এটাই প্রথম নজীর নয় ট্রাম্পের। চলতি বছরের শুরুতে ইমা থম্পসন দাবী করেছিলেন, একবার তাকে ফোন করে ডেটের প্রস্তাব দিয়েছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। অস্কারজয়ী এই অভিনেত্রী খুব নম্রভাবে সেই প্রস্তাব নাকোচ করে দেন। যদিও, গত মাসে ভ্যানিটি ফেয়ারের ক্রিস্টা স্মিথকে তিনি বলেছিলেন, সেই প্রস্তাবটা গ্রহণ করলে আজ হয়তো ইতিহাস পাল্টে যেত।

এই তালিকায় আছেন সালমা হায়েকও। গত গ্রীস্মে দ্য ডেইলি শো’র ট্রেভর নোয়াহকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, একটা অনুষ্ঠানে বয়ফ্রেন্ডের উপস্থিতিতেই আবেদনময়ী এই অভিনেত্রীকে ডাকেন ট্রাম্প। নিজে একটা সম্পর্কে জড়িয়ে আছেন বলেই ডেটের প্রস্তাবে সরাসরি ‘না’ বলে দেন হায়েক।

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।