আমরা শক্ত অবস্থানে আছি: তামিম ইকবাল

দিনের শেষ বেলায় দ্রুত উইকেট পড়ে গেছে। তারপরও দিনটা বাংলাদেশের। রোজ রোজ তো আর চার উইকেটে ৩৭৪ রান নিয়ে শেষ করার সুযোগ হয়না বাংলাদেশের। চট্টগ্রাম টেস্টে দিনের খেলা শেষে সংবাদ সম্মেলনে এসে তেমনটাই জানালেন তামিম ইকবাল।

শেষ বেলায় ছন্দপতন

দ্বিতীয় উইকেটে আমরা যেভাবে পারফর্ম করেছি, আমার কাছে মনে হয় ওইভাবে শেষ করতে পারলে এটা ‘কমপ্লিট পারফর্ম্যান্স’ হতে পারতো। সত্যি কথা এটা নিয়ে চিন্তিত ছিলাম, যাতে কোনো ধস না নামে। সধারণত কোনো বড় জুটি হলে আমাদের ক্ষেত্রে এমন (ধস) হয়। একটু বেশি হয়। আমরা আমাদের পক্ষ থেকে ব্যাটসম্যানদের এ বিষয়ে বার্তা দিচ্ছিলাম। কিন্তু দুঃখজনকভাবে মুশফিক আউট হওয়ার পর লিটন আউট হয়ে গেলো। তারপরও আমরা মনে করি- এটা একটা দারুণ দিন ছিলো। আমরা আক্রমণাত্মক ছিলাম, ইতিবাচক ছিলাম, একেবারে প্রথম বল থেকেই। যা দেখাটা দারুণ অভিজ্ঞতা।’

শুরুতেই আক্রমণ করার পরিকল্পনা

আমি যে প্ল্যানে খেলছিলাম, আমার মনে হয়েছিলো, আমি যদি ইতিবাচক শুরু করি, তাহলে ওরা চাপে পড়ে যাবে। এটাই হয়েছে। যে প্ল্যানটা আমি করেছি, সেটা কাজে লেগেছে। ওদের প্রধান বোলার যারা আছে, তাদের আক্রমণ করতে চেয়েছিলাম। আমি সফলভাবেই তা করেছি। এর ফলে ওরা এমন এক পরিস্থিতিতে পড়েছে, যেখানে ওদের আমরা পড়তে দেখতে চেয়েছিলাম। সত্যি কথা বলতে, একটা পর্যায়ে তারা বুঝতে পারছিলো না কোথায় বল করবে। আমাদের পরিকল্পনা ছিল আক্রমণ করার। আমরা সেটাতে সফল।

মুমিনুলের ইনিংস

আমার কাছে মনে হয় মুমিনুলের ইনিংসটা ছিল ফ্যান্টাস্টিক। প্রথমেই সে আক্রমণাত্মক ছিলো এবং সেভাবেই পুরো ইনিংস খেলে গেছে। যখন সে একশ করে তখন তার স্ট্রাইকরেট ছিলো ১০৩! যে জিনিসটা আমাদের জন্য এই উইকেটে গুরুত্বপূর্ণ ছিলো; আমরা জানতাম এখানে ব্যাটিং করা সহজ হবে, বিশেষ করে প্রথম দিনে ও ওর উইকেটটা নষ্ট করেনি। অনেক সময় দেখা যায় ব্যাটিং উইকেটে বেশি উত্তেজিত হয়ে ঝুঁকিপূর্ণ শট খেলে অনেকে আউট হয়ে যায়। ও সেটা করেনি। ও জানতো ওর উইকেটটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। একটা বড় জুটি গড়া আমাদের জন্য খুব দরকার ছিলো। আমার মনে হয় মুশফিক ও মুমিনুল খুব ইতিবাচক ছিলো। মারার মতো বল হলে তারা মেরেছে। আমার কাছে মনে হয় তাদের খেলাটা কমপ্লিট ছিলো। মুমিনুল যদিও নটআউট; আশা করি সে আরো অনেক দূর যাবে। ব্যক্তিগতভাবে মনে করি, তার (মুমিনুল) কিছু প্রমাণ করার ছিলো এবং সে সেটা দারুণভাবে করেছে।

উইকেট নিয়ে প্রত্যাশা

প্রত্যাশিত ছিলো আরো বেশি স্পিন হবে। কিন্তু আমরা আগে ব্যাটিং করছি, সুতরাং এ নিয়ে আমাদের অভিযোগ নেই। আমরা যতো বেশি রান করতে পারি, আমার মনে হয় কাল থেকে রান করা কঠিন হবে। আমরা এখন শক্ত অবস্থানে আছি। এখান থেকে আমাদের আরো রান করতে হবে। যতোই ফ্ল্যাট উইকেটে খেলেন না কেনো, বড় রান সব সময়ই কঠিন অন্য দলের জন্য। সুতরাং আমাদের জন্য এটাই নিশ্চিত করতে হবে।

ম্যাচে বাংলাদেশের অবস্থান

আমার কাছে মনে হয়, আমরা এমন পজিশনে আছি, যেখান থেকে অনেক রান করা সম্ভব। আমরা এমন অবস্থানে থাকি না। আমরা খুব ভালো একটা রেটে রান করেছি। কালও আমাদের দারুণ শুরু করতে হবে। আমরা যদি সেটা করতে পারি, যারা ড্রেসিংরুমে আছে, তারাও যদি অবদান রাখে আমরা তাহলে বড় রান করতে পারি। আমি এটাই আশা করছি।

প্রথম দিনের প্রত্যাশা

প্রথম দিনের প্রত্যাশা পুরোপুরিভাবে পূরণ হতো, যদি আমরা দুইটা উইকেট না হারাতাম। দুই উইকেট হারানোর পরও এটা আমাদের দিন। কাল আমরা কিভাবে শুরু করি, সেটা গুরুত্বপূর্ণ। ক্রিকেট ফানি গেম। তাদের ভালো বোলার আছে। আমরা যেভাবে করেছি, কালও সেভাবেই শুরু করতে হবে।

ব্যাটিংয়ের ভাল দিন

অবশ্যই এটা ভালো যে, আমরা ব্যাটিংয়ের দিক থেকে একটা সুন্দর দিন কাটালাম। আমরা সবাই জানি যে, ওদের সক্ষমতা আছে ঘুরে দাঁড়ানোর। যে দুজন ব্যাটসম্যান আছে, তারাও বড় কিছু করতে পারে। যারা ড্রেসিংরুমে আছে, তারাও বড় কিছু করতে পারে। আমাদের বড় জুটি করতে হবে এবং সামনে এগিয়ে যেতে হবে।

স্পিন সহায়ক উইকেট

আমার কাছে মনে হয়েছিলো প্রথম দিনেই বল স্পিন করবে। কিন্তু আমি আগেই বললাম, আমরা ভাগ্যবান যে আগে ব্যাটিং করছি। সুতরাং আমাদের অভিযোগ করার কিছু নেই। এটাই আশা করবো যে, তারা ব্যাটিংয়ে আসার পরই যাতে বল ঘুরতে থাকে! আমি এটাই আশা করতে পারি আসলে।

লিটনের আউট

আমারই তো মনে নাই, আপনাদের মনে থাকে কিভাবে… (আগের ইনিংসে লিটনের আগের আউট হওয়ার ধরণ)। আমিও এভাবে আউট হয়েছি একদুইবার। আমাদের ভুলের কারণেই এটা হয়। সে নিশ্চয় এটা নিয়ে কাজ করবে। আশা করি সে আবার সুযোগ পেলে এটা করবে না।

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।