বনসালীর ‘লীলা’

সঞ্জয় লীলা বনসালীকে বলিউডের সবচেয়ে শক্তিশালী পরিচালকদের একজন হিসেবে গণ্য করা হয়। কিন্তু কিছুদিন আগে একটা লেখা পড়ে জানলাম, তার নাকি অরিজিনাল কোন মুভি নাই। প্রত্যেকটি সিনেমাই কোনো না কোনো কিছু থেকে অনুপ্রাণিত।

চলুন এক পলকে জানা জানা যাক –

খামোশি – ইন্সপায়ার্ড বাই ‘বেয়োন্ড সাইলেন্স’

হাম দিল দে চুকে সানাম – ‘ন্য হন্যতে’ বই থেকে ইন্সপায়ার্ড।

দেবদাস – শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের দেবদাস-এর অ্যাডাপ্টেশন।

ব্ল্যাক – ‘দ্য স্টোরি অব মাই লাইফ’ বই এবং ‘দ্য মিরাকল ওয়ার্কার’ মুভি থেকে ইন্সপায়ার্ড

সাওয়ারিয়া – ইন্সপায়ার্ড ফ্রম হোয়াইট নাইটস (২০০৫) অথবা Le notti bianche (১৯৫৭)। বানসালী কোনটা থেকে ইন্সপাইরেশন নিয়েছেন বলা মুশকিল। কারণ এই দুই মুভির সোর্স ম্যাটেরিয়াল দস্তয়েভস্কির ছোটগল্প হোয়াইট নাইটস।

গুজারিশ – হুজ লাইফ ইজ ইট অ্যানিওয়ে (১৯৮১) এবং দ্য সি ইনসাইড (২০০৪) থেকে ইন্সপায়ার্ড।

রাম-লীলা – উইলিয়াম শেক্সপিয়ারের রোমিও অ্যান্ড জুলিয়েট এর আধুনিক রূপায়ণ।

বাজিরাও মাস্তানি – নাগনাথ ইনামদারের ‘রাউ’ উপন্যাসের অ্যাডাপ্টেশন।

পদ্মাবত – মালিক জ্যায়সীর ‘পদ্মাবত’ কবিতার অ্যাডাপ্টেশন।

‘রাম-লীলা’ সিনেমাটির আগে বনসালি পরিচালিত তিনটা মুভিই (ব্ল্যাক, সাওয়ারিয়া ও গুজারিশ) ছিল ফ্লপ। কিন্তু ‘রাম-লীলা’ নামকরণ সহ বিভিন্ন বিতর্কে পড়ে, আর মুভিটাও হিট হয়ে যায়। এর পর থেকে বানসালীকে বিতর্কের নেশায় পেয়েছে। আমার মনে হয়েছে, পদ্মাবত মুভিতে আলাউদ্দিন খিলজীর সেক্সুয়াল ওরিয়েন্টেশন নিয়ে যে বিতর্কটা উঠেছে সেটা ইচ্ছাকৃত।

সোজা কথায় মার্কেটিং স্ট্র‌াটেজি।

দাঁড়ান, ইতিহাসের বই খুলে দেখানোর দরকার নেই! বানসালী কিন্তু ইতিহাসের বড় একটা ভক্ত নন। বাজিরাও মাস্তানির উইকি পেজে আলাদা একটা প্যারাগ্রাফই রয়েছে হিস্টোরিক্যাল ইন-অ্যাকুরেসি নিয়ে।

বনসালীর বেশিরভাগ মুভি আমি দেখিনি। দেখার আগ্রহও নেই। সুতরাং এই লিস্ট কতটা সঠিক, তা নিয়ে আমি চিন্তিত নই। আমি শুধু অবাক হয়েছি এটা দেখে, এতটা অ্যাক্লেইম্ড একজন ডিরেক্টরের একটাও মুভির হিস্ট্রিও ক্লিন না। সবগুলোর দিকেই লোকে আঙুল তুলতে পারছে। যারা জীবন নিয়ে হতাশায় ভুগেন, তারা বনসালীর কাছ থেকে শিক্ষা নিতে পারেন। তাঁর তো দেখি পুরা লাইফটাই ইন্সপায়ার্ড!

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।