দুয়ারে পঞ্চম বিপিএল: পরিবর্তন, নতুনত্ব আর চমকের অপেক্ষা

আর মাত্র চার মাসেরও কম সময় বাকি। এরপরই  মাঠে গড়াতে যাচ্ছে বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় ঘরোয়া ক্রিকেট টুর্নামেন্ট বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) এর পঞ্চম আসর। বিপিএলের গত আসরে সাতটি দল অংশ নিলেও আসছে নভেম্বরে শুরু হতে যাওয়া এবারের আসরে অংশ নিতে যাচ্ছে আটটি দল। বিপিএলের প্রথম তিনটি আসরে অংশগ্রহণ করলেও গত আসরে অংশ না নেয়া সিলেট নতুন ফ্র্যাঞ্চাইজির অধীনে এবারের টুর্নামেন্টে মাঠে নামতে যাচ্ছে।

দলের নামেও আসছে পরিবর্তন। পূর্বের ‘সিলেট সুপারস্টার্স’ নাম বদলে এবারের সিলেট দলের নতুন নাম ‘সুরমা সিক্সার্স’। যদিও নামটি এখনো অফিশিয়ালি কার্যকর হয়নি। নতুন নামটি কার্যকর করতে সিলেট মালিকপক্ষকে অপেক্ষা করতে হবে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের ছাড়পত্রের জন্য।

বিপিএলের পঞ্চম আসরকে ঘিরে এরই মধ্যে দল গোছাতে শুরু করে দিয়েছে কয়েকটি ফ্র্যাঞ্চাইজি। কে কোন বিদেশিকে আগে দলে ভেড়াতে পারে তা নিয়ে ফ্র্যাঞ্চাইজিদের মধ্যে চলছে একপ্রকার নীরব যুদ্ধ। ইতোমধ্যে কয়েকটি ফ্র্যাঞ্চাইজি সময়ের সেরা টি-টোয়েন্টি খেলোয়াড়দের দলে ভেড়াতে শুরু করেছে। বিদেশি ব্যাটসম্যান বা বোলারদের চেয়ে অলরাউন্ডারদের দলে ভেড়ানোর আধিক্যই এবার বেশি লক্ষ্য যাচ্ছে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর মধ্যে।

গতবারের চ্যাম্পিয়ন ঢাকা ডাইনামাইটস অলরাউন্ডারদের দিকে বেশি গুরুত্ব দিয়ে দল গোছাতে শুরু করেছে। ইতোমধ্যে তাঁরা দলে নিয়েছেন নিরোশান ডিকওয়েলা, আসেলা গুনারন্তে, রভম্যান পাওয়েল, শেন ওয়াটসন, শহীদ আফ্রিদি, রন্সফোর্ড বিটন, মোহাম্মদ আমির ও সুনীল নারিনের মত টি-টোয়েন্টি স্পেশালিস্টদের। তাছাড়া গত আসরে তাদের হয়ে খেলা এভিন লুইস ও কুমার সাঙ্গাকারা তো আছেনই।

বিদেশি খেলোয়াড়দের দলে ভেড়ানোর ক্ষেত্রে বর্তমানে ঢাকার পেছনে বাকি সব ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো। গত আসরের রানারআপ রাজশাহী কিংস এখন পর্যন্ত মাত্র দু’জন বিদেশিকে দলে নিতে পেরেছে। তাঁরা হলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের লেন্ডল সিমন্স ও জিম্বাবুয়ের ম্যালকম ওয়ালার। এবারের আসরে নতুন অধিনায়কের নেতৃত্বে খেলতে যাচ্ছে রাজশাহী কিংস। কারণ গত আসরের তাদের নিয়মিত অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি দক্ষিণ আফ্রিকা টি-টোয়েন্টি গ্লোবাল লিগে অংশ নেয়ার কারণে দলের সাথে এবার যুক্ত হতে পারছেন না।

অন্যদিকে বিপিএল ২০১৫ আসরের চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সও বেশ ভালো এগোচ্ছে দল গঠনের দিক দিয়ে। তাঁরা পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের দলে ভেড়ানোর ওপর বেশি জোর দিয়েছেন। ইতোমধ্যে তাঁরা দলে নিয়েছেন মোহাম্মদ নবী, শোয়েব মালিক, অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস, কলিন মানরো, হাসান আলি ও ফাহিম রহমানকে।

গত আসরে পঞ্চম হওয়া রংপুর রাইডার্সের মালিকানায় এবার এসেছে একটু পরিবর্তন। সোহানা স্পোর্টসের পাশাপাশি দলের মালিকানায় এবার যুক্ত হয়েছে বসুন্ধরা গ্রুপ। এরই মধ্যে দল সাজাতে শুরু করে দিয়েছে রংপুর রাইডার্স। বেশকয়েকজন বিদেশি খেলোয়াড়কেও দলে ভিড়িয়ে ফেলেছেন তাঁরা। পুরো আসরের জন্য তাঁরা দলের সাথে নিবন্ধন করিয়েছেন রভি বোপারা, থিসারা পেরেরা, জনসন চার্লস ও স্যামুয়েল বদ্রিকে।

গত আসরের মত এবারের আসরেও রংপুরের হয়ে খেলার কথা রয়েছে ক্রিস গেইলের। দক্ষিণ আফ্রিকার টি-টোয়েন্টি গ্লোবাল লিগ শেষে যদি সময় পান তাহলে ৩-৪ টি ম্যাচে রংপুরের জার্সি গায়ে দেখা যেতে পারে এই ব্যাটিং দানবকে। তাছাড়া অস্ট্রেলিয়ার ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার ও দক্ষিণ আফ্রিকার অলরাউন্ডার ক্রিস মরিসকে দলে ভেড়ানোর আলোচনা অনেকখানি এগিয়েছে বলে জানিয়েছেন দলটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ইশতিয়াক সাদেক। দল গঠনের ক্ষেত্রে বড় বড় ক্রিকেটারদের চেয়ে কার্যকরী ক্রিকেটারদের দলে যুক্ত করাই মূল লক্ষ্য তাঁর।

দল সাজানোর দিক দিয়ে পিছিয়ে নেই খুলনা টাইটান্সও। বেশকয়েকজন মারকাটারি ব্যাটসম্যানকে দলে নিয়েছে তাঁরা। ক্রিস লিন, রাইলি রুশো, সেকুগে প্রসন্ন তাদের মধ্যে অন্যতম। তাছাড়া দলের সাথে থাকবেন সদ্য আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জয়ী পাকিস্তান দলের অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ, লেগ স্পিনার সাদাব খান, সিমার কাইল অ্যাবট ও গত আসরের তাদের হয়েই খেলা জুনায়েদ খান। ঢাকা, রাজশাহী, কুমিল্লা, রংপুর, খুলনা দল সাজাতে ব্যস্ত থাকলেও এখন পর্যন্ত দল সাজাতে শুরু করেনি চিটাগং ভাইকিংস, বরিশাল বুলস ও সুরমা সিক্সার্স।

বিপিএলের এবারের আসরে একটি দল বাড়ায় একজন আইকন ক্রিকেটারের সংখ্যাও বাড়ছে। আইকন তালিকায় নতুনকরে যুক্ত হচ্ছে মুস্তাফিজুর রহমানের নাম। তাছাড়া ইতোমধ্যে কয়েকটি দলের পূর্বের আইকন ক্রিকেটারও পরিবর্তিত হয়েছে। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের অধিনায়ক মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা এবারের আসরে খেলবেন রংপুর রাইডার্সের হয়ে, বরিশালের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম ও চিটাগংয়ের অধিনায়ক তামিম ইকবাল খেলবেন যথাক্রমে রাজশাহী কিংস ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের হয়ে। আইকন সাকিব আল হাসান ও মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ খেলবেন তাদের পুরনো দলেই।

তবে এখনো চূড়ান্ত হয়নি গত আসরের আইকন ক্রিকেটার সাব্বির রহমান ও সৌম্য সরকারের ঠিকানা। তাঁরা আইকন হিসেবে এবারের আসরে খেলতে পারবেন কিনা তা নিয়েও রয়েছে কিছুটা সংশয়। সৌম্য সরকারের সাম্প্রতিক ফর্ম বাজে হওয়ায় তাকে আইকন ক্যাটাগরি থেকে অপসারণের কথা শোনা যাচ্ছে। তাঁর জায়গায় সম্ভাব্য তালিকায় ইমরুল কায়েসের নাম থাকলেও কায়েসকে আইকন করা হচ্ছে না বলে নিশ্চিত করেছেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স কর্তৃপক্ষ। নাসির হোসেনকেও আইকন ক্যাটাগরিতে সংযোজন করা হতে পারে এবারের আসরে। সেক্ষেত্রে সাব্বির অথবা সৌম্যকে হতে হবে বলির পাঠা।

এবারের বিপিএলে পূর্ণ স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে এ-প্লাস ক্যাটাগরির ক্রিকেটারদের। এ-প্লাস ক্যাটাগরির ক্রিকেটাররা নিজের ইচ্ছামত যেকোন ফ্র্যাঞ্চাইজির সাথে যুক্ত হতে পারবেন। প্রতিটি দল পুরনো আসরের ৪ জন ক্রিকেটারকে এবারের দলে ধরে রাখতে পারবে। তবে এক্ষেত্রে এ-প্লাস ক্যাটাগরির কোন ক্রিকেটারকে যদি কোন ফ্র্যাঞ্চাইজি ধরে রাখতে চায় কিন্তু তাতে যদি অমত থাকে সেই ক্রিকেটারের তাহলে তিনি নিজের পছন্দমত দল বেছে নিতে পারবেন।

আসন্ন বিপিএলে অংশ নিতে যাওয়া সিংহভাগ দলের প্রধান কোচের তালিকায়ও এসেছে পরিবর্তন। ইতোমধ্যে নতুন কোচ নিয়োগ দিয়েছে খুলনা টাইটান্স, বরিশাল বুলস, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ও রংপুর রাইডার্স। স্টুয়ার্ট ল’র জায়গায় এবার খুলনা টাইটান্সের নতুন কোচ হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন মাহেলা জয়াবর্ধনে।

তাছাড়া বরিশাল বুলসে ডেভ হোয়াটমোরের জায়গায় দক্ষিণ আফ্রিকার গ্রাহাম ফোর্ড, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সে মিজানুর রহমান বাবুলের জায়গায় মোহাম্মদ সালাউদ্দিন এবং রংপুর রাইডার্সে জাভেদ ওমর বেলিমের জায়গায় অস্ট্রেলিয়ার টম মুডি কোচ হিসেবে নিযুক্ত হয়েছেন। ঢাকা ডাইনামাইটস ও রাজশাহী কিংসে অপরিবর্তিত কোচ হিসেবে থাকছেন খালেদ মাহমুদ সুজন এবং সারোয়ার ইমরান। গেলবারের আসরে চিটাগং ভাইকিংসের কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিন এবার কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের দায়িত্ব পাওয়ায় ভাইকিংসদের কোচেও আসতে যাচ্ছে পরিবর্তন। তবে তাঁর স্থলাভিষিক্ত কে হবেন এবং নতুন দল সুরমা সিক্সার্সের কোচ কে হতে যাচ্ছেন এ সম্পর্কে এখনও কোন ধারনা পাওয়া যায়নি।

বিপিএল শুরুর আগে বিতর্ক সৃষ্টি যেন প্রতিবছরের নিয়মিত ঘটনা। এবারও আসর শুরু আগে কিছু বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। বিগত বছরগুলোতে আসর শুরু হবার আগে সবচেয়ে বেশি যে বিষয়টি নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হতো তা হলো খেলোয়াড়দের বকেয়া পরিশোধ। কিন্তু এবার আর তা হয়নি। বেশকয়েকমাস আগেই  ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো  খেলোয়াড়দের গত আসরের পাওনা টাকা পরিশোধ করে দিয়েছে। কিন্তু এবার বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে ভিন্ন বিষয় নিয়ে।

কয়েকমাস আগে শোনা যাচ্ছিলো যে প্রথম দুই আসরের মত এবারের বিপিএলেও প্রত্যেকটি দল একাদশে পাঁচজন বিদেশি খেলাতে পারবে। এতে করে ম্যাচে আমাদের দেশি ক্রিকেটারদের খেলার সংখ্যা কমে যাবে। এমনিতেই প্রতি বছর প্রায় প্রত্যেকটি দলে এমন কয়েকজন তরুণ বা জাতীয় দলের বাইরে থাকা ক্রিকেটাররা থাকেন যারা কিনা নিজেদের প্রমাণ করার জন্য এক ম্যাচও খেলার সুযোগ পান না।

এখন যদি একাদশে বিদেশি খেলোয়াড়দের সংখ্যা আরেকজন বাড়ানো হয় তাহলে তাদের সংখ্যাটা পূর্বের চেয়ে আরো বেড়ে যাবে। অথচ এসব টুর্নামেন্টের মূল লক্ষ্যই থাকে জাতীয় দলে খেলার উপযোগী নতুন ক্রিকেটার বের করে আনা। তাই একদশে ৫ জন বিদেশি খেলানো নিয়ে কিছু বিতর্ক তৈরি হয়েছিল। তবে কিছুদিন আগে একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলে দেয়া সাক্ষাতকারে একাদশে পাঁচ জন বিদেশি খেলানোর সিদ্ধান্ত নেয়ার সম্ভাবনা সম্পূর্ণ উড়িয়ে দেন বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যান আফজালুর রহমান সিনহা।

গত কয়েকদিন আগে আরেকটি বিতর্কের জন্ম দেন বরিশাল বুলসের অন্যতম কর্ণধার আব্দুল আওয়াল বুলু। বরিশাল বুলসের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের শৃঙ্খলা ও দলের প্রতি তাঁর দায়িত্বজ্ঞান নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করে বসেন তিনি। একজন বিসিবি কর্মকর্তার কাছ থেকে প্রকাশ্যে এমনসব মন্তব্য কখনোই কাম্য নয়। এর জন্য বিসিবি থেকে কারণ দর্শানোর নোটিশও দেয়া হয়েছে আব্দুল আওয়াল বুলুকে। এসব মন্তব্যের কারণ বা এর সঠিক উত্তর দিতে না পারলে তাঁর বিরুদ্ধে শাস্তির ব্যবস্থাও নেয়া হবে বলে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) আশ্বাস দিয়েছে।

আগামী চার নভেম্বর থেকে শুরু হবে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের পঞ্চম আসর। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হবে দুই নভেম্বর। প্লেয়ারস ড্রাফট অনুষ্ঠিত হবে ১৬ সেপ্টেম্বর। দলসংখ্যা বাড়ায় এবারের আসরে ভেন্যু বাড়ানোর কথাও মাথায় রাখছে বিসিবি। সেক্ষেত্রে ঢাকা ও চট্টগ্রামের সাথে সম্ভাব্য ভেন্যু হতে পারে সিলেট।

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।