তারকাদের জীবনে রহস্য থাকতে হয়: সালমান খান

১৯৮৯ সাল। বলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে এক সাথে আগমণ ঘটে দুই তারকার। ‘ম্যায়নে পেয়ার কিয়া সিনেমা’র বদৌলতে ভাগ্যশ্রীর সাথে জনপ্রিয়তা পান সালমান খান নামের এক তরুণ। অভিষেক অবশ্য এর আগের বছর। তবে, ওই সিনেমায় অভাবনীয় সাফল্যের পর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে।

২৯ বছরের ক্যারিয়ারে তিনি নিজেকে নিয়ে গেছেন সাফল্যের শিখরে।  ৫২ বছর আগের আজকের দিনেই তিনি জন্মেছিলেন মধ্যপ্রদেশের ইন্দোরে। পর্দায় যতটা আকর্ষণীয় সাল্লু ভাই, পর্দার বাইরেও কথা বার্তায় নিজের বলিষ্টতা ধরে রাখেন। কখনো সত্যটা বলতে ঘাবড়ান না তিনি।

চলুন সেসবের ব্যাপারে একটা ধারণা নেওয়া যাক।

১.

সবাই আমার চেয়ে ভাল একটা জীবন কাটায়। কারণ আমাকে টানা ২৪ ঘণ্টাও কাজ করতে হয়, সেই ১৫ বছর বয়স থেকে। আমি গাড়িতেও রাত কাটিয়েছি, কারণ কোনো ভ্যানটি ভ্যান খালি ছিল না। সারাজীবন আমি কেবল কাজই করেছি।

২.

যত বুড়ো হবেন, তত আপনাকে আরো দেখতে ভাল হতে হবে। যত উঁচুতে গিয়ে লাথি মারবেন, ততটা পরিশ্রমও কিন্তু করতে পারতে হবে।

৩.

আমার কোনো নারীর মন যোগানোর প্রয়োজন পড়ে না। কারো মন যুগিয়ে চলতে হলে আমার নিজস্বতা নষ্ট হবে। সে কেবল আপনার দিকে ঘুরে গালে একটা চড় দেবে। তার চেয়ে নিজের মত হউন।

৪.

ডায়লোগে যখন যা লেখা থাকে সব সময় সেটা আমি মানি না। একটু নিজের মত রং চড়াই, একটু এদিক-সেদিক করি। যদি বড় লাইন হয় তাহলে লং আর শট দু’টো ভিন্ন শট নেওয়া হয়। আমার হয়ে কেউ লাইনগুলো বলে দেয়, আর আমি মনে যা আসে তাই বলি।

৫.

সব সময় শাহরুখ আমাকে ওর সাথে বিরোধে যাওয়ার জন্য অর্থ দেয়। এরপরই চলে যায়। পরে আমারই আবার আসতে হয় ওকে সমর্থন করতে।

৬.

আমার বাবা পাঠান, মা রাজপুত, দ্বিতীয় মা ক্রিশ্চিয়ান। স্কুলে কেউ আমার ধর্ম জানতে চাইলে বাবা বলতেন – ‘মানুষ’!’

৭.

অবশ্যই আমি ভার্জিন, আমি আমার স্ত্রীর জন্য এটা সেভ করে রেখেছি।

৮.

আচ্ছা, আমি কেন বিয়ে করবে? কেউ বাচ্চা-কাচ্চার জন্য বিযে করে। কিন্তু আমার তো গাদা বাচ্চা-কাচ্চা আছে। আমার একগাদা ভাতিজি-ভাতিজা, আছে। আমি বাচ্চার জন্য বিয়ে করতে চাইতাম। এখন তো আমার বাচ্চা আছে। বিয়ের কি দরকার!

৯.

ভক্তরা আমাদের জীবনে আগ্রহী, কারণ আমরা এটা কারো সাথে শেয়ার করি না। একজন তারকার জীবনে সব সময়ই রহস্য থাকতে হয়। অন্যরা নিজেদের ব্যাপারে সব কিছু খোলাখুলি করতে পারেন কিন্তু, কিন্তু একটা সেলিব্রিটি পারেন না। আমাদের লিভিংরুমটা দুনিয়ার জন্য, পুরো দেশের জন্য। কিন্তু, বেডরুমটা স্রেফ একান্ত ব্যক্তিগত।

১০.

প্রেমে ব্যর্থতা এখন আমার গা সওয়া হয়ে গেছে। যতবার প্রেমে ব্যর্থ হই, ততবার নিজেকে ভাগ্যবান বলে মনে হয়।

– ডিএনএ ইন্ডিয়া অবলম্বনে

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।