তামিম ইকবাল: ৬৬ না ৪২?

প্রথম ম্যাচে ৮৪, দ্বিতীয় ম্যাচেও ৮৪। বোঝাই যায় ফর্মের তুঙ্গেই আছেন তিনি। মঙ্গলবার জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেও বড় ইনিংস খেলতে পারলে আরো কয়েকটি মাইলফলক ছুঁয়ে ফেলবেন ড্যাশিং এই ওপেনার।

ওয়ানডে ক্রিকেটে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ছয় হাজার রানের মাইলফলকের সামনে দাঁড়িয়ে আছেন তিনি।আর ৬৬ রান করলেই প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ওয়ানডেতে ৬ হাজার রান পূর্ণ করবেন তামিম। এছাড়া আরও একটি বিশ্বরেকর্ড গড়ার সামনে দাঁড়িয়ে তামিম।

একই ভেন্যুতে অর্থাৎ মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সবচেয়ে বেশি রান করার জন্য তামিমের প্রয়োজন ৪২ রান। আগামীকাল ত্রিদেশীয় সিরিজের পঞ্চম ম্যাচে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ব্যাট হাতে ৬৬ রান করলেই দু’টি রেকর্ড একসাথে স্পর্শ করতে পারবেন তামিম। অথবা ৪২ রান করলেও বিশ্বরেকর্ডের মালিক হবেন তিনি।

ক্রিকেট বিশ্বে একই ভেন্যুতে ওয়ানডেতে সবচেয়ে বেশি রান করার জন্য ত্রিদেশীয় সিরিজ শুরুর আগে তামিমের প্রয়োজন ছিলো ২১০ রান। প্রথম দু’ম্যাচে মিরপুরের ভেন্যুতে ১৬৮ রান করে ফেলায় রেকর্ড স্পর্শ করার কাছেই চলে এসেছেন তামিম। তবে ইতোমধ্যে পাকিস্তানের ইনজামাম উল হককে ছাড়িয়ে গেছেন তামিম।

একই ভেন্যুতে সবচেয়ে বেশি রান করার বিশ্বরেকর্ডের মালিক এখন শ্রীলংকার সাবেক অধিনায়ক সনাথ জয়সুরিয়া। কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে ৭১ ম্যাচের ৭০ ইনিংসে ২৫১৪ রান করেছেন তিনি। একই ভেন্যুতে সবচেয়ে বেশি রান এটিই।

ত্রিদেশীয় সিরিজের আগে এই তালিকায় দ্বিতীয়স্থানে ছিলেন পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক ইনজামাম-উল-হক। শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ৫৯ ম্যাচের ৫৯ ইনিংসে ২৪৬৪ রান করেছেন তিনি। তবে ত্রিদেশীয় সিরিজের প্রথম দু’ম্যাচে ১৬৮ রান করায় ইনজামামকে টপকে ২৪৭৩ রানের মালিক এখন তামিম। জয়সুরিয়াকে টপকে যেতে তামিমের প্রয়োজন এখন ৪২ রান।

ত্রিদেশীয় সিরিজে শ্রীলংকার বিপক্ষে ম্যাচে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১১ হাজার রান পূর্ণ করেছেন তামিম। এ ব্যাপারে আজ তামিম বলেন, ‘মাইলফলকগুলো ভালো লাগে। কেউ দশ হাজার রান করলে এটা অবশ্যই মাইলস্টোন। জানি না কয়জন করছে। সাকিবের ১০ হাজার হয়েছে, মুশফিক সব মিলিয়ে ৩০০ ম্যাচ খেলেছে। এটাও মনে হয় না যে খুব বেশি মানুষ করেছে। আমাদের কাছে ব্যক্তিগতভাবে ভালো লাগে যেটা দ্যাট ইন্ডিভিজ্যুয়াল ফিলস গুড।’

একই ভেন্যুতে সবচেয়ে বেশি রান করার দৌড় আছেন বাংলাদেশের সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানও। জয়সুরিয়াকে টপকে যেতে সাকিবের আরও লাগবে ১৯৬ রান। ত্রিদেশীয় সিরিজের প্রথম দু’ম্যাচে ৩৭ ও ৬৭ রান করেন সাকিব। এই টুর্নামেন্টে এই ভেন্যুতে এখনও বাংলাদেশের তিনটি ম্যাচ রয়েছে। এই তিন ম্যাচে সাকিব এই অর্জনের সুযোগ কাজে লাগানোর চেষ্টা করবেন, এটি বলার অপেক্ষা রাখে না।

একই ভেন্যুতে ওয়ানডেতে সবচেয়ে বেশি রান করা শীর্ষ পাঁচ ব্যাটসম্যান

সনাথ জয়সুরিয়া (১৯৯২-২০০৯) – প্রেমাদাসা স্টেডিয়াম, কলম্বো    – ২৫১৪ রান

তামিম ইকবাল (২০০৭-২০১৬)     মিরপুর শেরে ক্রিকেট স্টেডিয়াম, ঢাকা – ২৪৭৩ রান

ইনজামাম-উল-হক (১৯৯৩-২০০২) শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়াম – ২৪৬৪ রান

সাকিব আল হাসান (২০০৬-২০১৬) মিরপুর শেরে ক্রিকেট স্টেডিয়াম, ঢাকা – ২৩১৮ রান

সাইদ আনোয়ার (১৯৯০-২০০১) শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়াম, সংযুক্ত আরব আমিরাত – ২১৭৯ রান

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।