গডফাদার ছাড়াই টিকে আছেন যিনি

এশিয়ার সবচেয়ে আবেদনময়ী পুরুষদের তালিকা করলে এখনো ওপরের দিকেই থাকে তার নাম। তিনি হলেন জন আব্রাহাম। ১৯৭২ সালের ১৭ ডিসেম্বর কেরালা’য় জন্মগ্রহণ করেন বলিউডের অন্যতম সুদর্শন এই নায়ক ও মডেল। জীবনের এতগুলো বসন্ত কাটিয়ে ফেললেও তার আবেদন কমেনি একটুও।

বলিউডের মতো ইন্ডাস্ট্রি-তে কোনো স্টারকিড না হয়ে, গডফাদার ছাড়া সুযোগ পাওয়া এবং ঠিকে থাকা চাট্টিখানি কথা নয়! যারা সাম্প্রতিক কালে পেরেছেন, তাদের মধ্যে জন আব্রাহাম অন্যতম। সাথের অনেকেরই ক্যারিয়ার শেষ হয়ে গিয়েছে কিংবা শেষ হওয়ার পথে কিন্তু জন ঠিকই স্ট্রাগল করে বলিউডে নিজের একটা জায়গা পাকাপোক্ত করতে পেরেছেন।

প্রথম সিনেমা ২০০৩ সালে মুক্তি পাওয়া ‘জিসম’ হিট ছিলো। এরপর টানা চারটা মুভি (ছায়া, পাপ, ইয়াতবার এবং লাকীর) সুপার-ডুপার ফ্লপ হওয়ার পর তাকে প্রায়ই আগের পেশা মডেলিং-য়ে ফিরে যাওয়ার কথা শুনতে হতো। অভিনয় জানেন না, এক্সপ্রেশন নেই – এসব কথা শুনে শুনে কান পঁচে গিয়েছিল জনের।

কিন্তু, কারো কথায় কান না দিয়ে নিজের কাজটা ঠিকঠাক মতো করে গিয়েছেন এবং এর ফল পেতেও বেশি দিন অপেক্ষা করতে হয়নি। ২০০৪ সালে রিলিজ হওয়া যশ রাজ ফিল্মস-এর ‘ধুম’ রীতিমত তারকা বানিয়ে দেয় জন-কে! পরের কয়েক বছর ওয়াটার, জিন্দা, ট্যাক্সি নং ৯২১১, কাবুল এক্সপ্রেস, নো স্মোকিং-এর মতো মুভিগুলো প্রশংসিত হলেও বক্স অফিসে কোনোটাই তেমন বিশেষ সুবিধা করতে পারেনি।

তবে ২০০৮ সালের পর থেকে এই হিসেবটা পাল্টে যায়! বক্স অফিসে নিয়মিত সফল হতে থাকে জনের মুভিগুলো। যেগুলোর মধ্যে দোস্তানা, নিউইয়র্ক, ফোর্স, দেশি বয়েজ, হাউজফুল টু, রেস টু, শুট আউট অ্যাট ওয়াডালা, মাদ্রাজ ক্যাফে, ওয়েলকাম ব্যাক, ঢিশুম অন্যতম। সর্বশেষ ‘ফোর্স টু’ বক্স অফিসে ব্যর্থ হলেও বেশ প্রসংসিত হয়েছিলো দর্শক এবং সমালোচক মহলে!

এক সময় বলিউডের ‘সুপার কাপল’ হিসেবে পরিচিত ছিলো জন-বিপাশা জুটি। আট বছরের সম্পর্ক ভাঙার পর ২০১৪ সালে প্রিয়া রাঞ্চালের সাথে সংসার বেঁধে বর্তমানে ব্যক্তিজীবনে বেশ সুখেই আছেন জন।

২০১৭ সালে জনের কোনো ছবি মুক্তি পায়নি। তবে, ২০১৮ সাল দিয়েই গেল বছরের আক্ষেপটা মিটিয়ে ফেলতে পেরেছেন তিনি। এই বছর মুক্তি পেয়েছে তাঁর দু’টি সিনেমা। দু’টিই ব্যবসায়িক ভাবে সফল। ৪৪ কোটি রুপি বাজেটের ‘পরমানু’ ব্যবসা করেছে প্রায় ৬৫ কোটি রুপির। অন্যদিকে ‘সত্যমেভা জায়াতে’ ৪৫ কোটি বাজেট নিয়ে প্রায় আশি কোটি রুপি ব্যবসা করেছে। সব মিলিয়ে জনের সময়টা মন্দ যাচ্ছে না। টিকে থাকুক এই সুসময়!

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।