একটা ছিল সোনার কন্যা

‘একটা ছিল সোনার কন্যা, মেঘ বরণ কেশ

ভাটি অঞ্চলে ছিল সেই কন্যার দেশ!’

শ্রাবন মেঘের দিনের সোনার কন্যা ‘কুসুম’ কিংবা আজ রবিবারে ‘তিতলি’ হয়ে যিনি বিমোহিত করেছিলেন। তিনি হুমায়ূন আহমেদের সহধর্মিনী, বাংলা টেলিভিশন ও চলচ্চিত্র জগতের আলোচিত অভিনেত্রী মেহের আফরোজ শাওন। গায়িকা হিসেবেও আছে তার যথেষ্ট সুনাম।

নতুন কুঁড়ির মাধ্যমে টিভি জগতে আসা এই অভিনেত্রীর প্রথম নাটক ‘নক্ষত্রের রাত’। এরপর পুষ্পহার, সবুজ সাথী, আজ রবিবার, উড়ে যায় বকপক্ষী, কালা কইতর, সমুদ্র বিলাস প্রাইভেট লিমিটেড, হাবলঙ্গের বাজারে, রুপালি রাত্রি, সেদিন চৈত্রমাস, চৈত্র দিনের গান, বাদল দিনের প্রথম কদম ফুল, যমুনার জল দেখতে কালো, এসো, আমরা তিনজন, এনায়েত আলীর ছাগল, এই বর্ষায়-সহ অসংখ্য দর্শক নন্দিত নাটকে অভিনয় করেছেন।

চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করেন ‘শ্রাবন মেঘের দিন’ সিনেমা দিয়ে, এর ঠিক পরের বছরেই ‘দুই দুয়ারী’ ছবিতে অভিনয় করেন। দুটো ছবিতে অভিনয় করে সেই সময় ব্যাপক আলোচিত হন। এরপর চন্দ্রকথা, শ্যামল ছায়া ও আমার আছে জল চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন।

তিনি মূলত হুমায়ূন আহমেদের নাটক-চলচ্চিত্রে অভিনয় করতেন। হুমায়ূন আহমেদের স্ত্রী বলেই কী না, কখনোই তিনি এক কিংবদন্তির ছায়া থেকে বের হননি। অভিনয়ের জগত ছেড়ে বেশ কয়েক বছর ধরে পরিচালনায় ব্যস্ত আছেন, তবে তিনি পরিচালনায় একেবারেই অপরিপক্ক। ‘কৃষ্ণপক্ষ’ তাঁর অন্যতম প্রমান, এছাড়া হুমায়ূন আহমেদের পুরনো নাটকগুলি নতুনভাবে আবার বানাচ্ছেন, যেটা একেবারেই মন ছুঁয়ে যাচ্ছে না।

তাই অনুরোধ, হুমায়ূন আহমেদের পুরনো নাটক নিয়ে আর নাটক না নির্মান করতে, বা করলেও সেটা যাতে হুমায়ুন আহমেদের নাম ও মানের সাথে যায় সেদিকে লক্ষ্য রাখবেন। সম্প্রতি আবার তিনি নির্মান করতে যাচ্ছেন হুমায়ূন আহমেদের জনপ্রিয় উপন্যাস অবলম্বনে ‘নক্ষত্রের রাত’ সিনেমা। প্রত্যাশা রইলো, এই সিনেমা দিয়ে তিনি দর্শকদের প্রত্যাশা পূরন করতে সমর্থ হবেন।

জন্ম ১৯৮১ সালের ১২ অক্টোবর। ব্যক্তিজীবনে বিয়ে করেছেন যার সৃষ্টিকর্মে অভিনয় করে নিজেকে নন্দিত করেছেন সেই প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ কে, সংসারে রয়েছে দুই সন্তান। ক্যান্সারে স্বামীর প্রয়ানের পর বিভিন্ন ভাবে সমালোচিত হয়েছেন, হচ্ছেন হয়তো ভবিষ্যতে হবেনও।

তবুও এর মাঝে দুই পুত্র কে নিয়ে নানা প্রতিকূলতা পেরিয়ে একজন সফল মা হিসেবে নিজেকে পরিচিত করবেন, এই আশা রাখি।  শুভকামনা রইলো। বিতর্ক ছাপিয়ে তিনি আরো এগিয়ে যাবেন সামনে – এমনটাই প্রত্যাশা রইলো।

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।