এইচএসসির ভুতুড়ে ফলাফল: ৫০ নম্বরের পরীক্ষায় ৬৩!

৫০ নম্বরের পরীক্ষা। সেখানে ৬৩ পাওয়া কী সম্ভব? এমন অসম্ভব ঘটনা ঘটেছে সাতক্ষীরায়। গত রোববার প্রকাশিত হায়ার সেকেন্ডারি সার্টিফিকেট (এইচএসসি) পরীক্ষায় কলারোয়া সরকারী কলেজের সুদীপ্ত কুমার সর্দার উচ্চতর গণিত দ্বিতীয় পত্রের সৃজনশীল অংশে ৫০-এ পেয়েছেন ৬৩ নম্বর।

বিজ্ঞান বিভাবে যশোর বোর্ডের অধীনে ২০১৫-১৬ শিক্ষা বছরের নিয়মিত শিক্ষার্থী ছিলেন সুদীপ্ত। ব্যবহারিক পরীক্ষায় তিনি ২৫ এ পান ২৪ নম্বর। আর নৈর্ব্যক্তিকে ২৫ এ পেয়েছেন আট।

প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র মিলে তার মোট নম্বর ১৬৪। মানে এ প্লাস। কিন্তু, ৫০ এ ৬৩ পাওয়া কী করে সম্ভব? – ঘটনাটা সামনে চলে আসার পর বিষয়টা নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় কড়া সমালোচনা হচ্ছে। ফলাফলে এমন ভুল অনেক প্রশ্ন, অনেক গুজবের জন্ম দিয়েছে।

সুদীপ্তর কলেজের দাবী ভুলটা বোর্ডের পক্ষ থেকেই হয়েছে। কলেজের গণিতের অধ্যাপক শাহনেওয়াজ করিম বলেন, ‘ভুলটা বোর্ডই করেছে। ৫০ এ ৬৩ পাওয়া তো আর সম্ভব না।’

যশোর বোর্ডের ওয়েবসাইটেও ‘ভুল’টাই দেখাচ্ছে। কলারোয়া সরকারী কলেজের অধ্যক্ষ বাসু দেব বসু অবশ্য ভুলের দায়টা বোর্ডকে দিলেন। তিনি বলেন, ‘পুরো বিষয়টা এখন বোর্ডের হাতে।’

বোর্ডের কনট্রোলার মাধব চন্দ্র রুদ্র নিজেদের ভুলটা স্বীকার করে নিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘আমরা ভুলটা শুধরে নিচ্ছি। আসলে কোথায় সমস্যা হয়েছিল সেটাও আমরা খতিয়ে দেখছি।’

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।