‘আমি শাহরুখ খান, আমি কেন অন্যের সাথে তুলনায় যাবো’

নিজের সমসাময়িকদের সাফল্য বা ব্যর্থতা নিয়ে মোটেই চিন্তিত নন কিং খান। তাঁর মতে, এতো তারকাখ্যাতির কোনোই মানে নেই, যদি অন্যদের সাফল্য বা ব্যর্থতার ভাবনায় দিনাতিপাত করতে হয়। এরই মধ্যে ইন্ডাস্ট্রিতে ২৬ বছর পার করে দিয়েছেন এই ৫৩ বছর বয়সী তারকা। অনেক তারকার ভিড়েও নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন ‘বলিউড বাদশাহ’ রূপে।

‘প্রতিদ্বন্দ্বীদের কাজের মুখে অটল থেকে কঠিন প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে বলিউডের রঙ্গীন দুনিয়ায় নিজেকে টিকিয়ে রাখা কতটা কঠিন? – এমন প্রশ্নের উত্তরে শাহরুখ পাল্টা প্রশ্ন করেন ‘এতো বড় তারকা হওয়ার মানেটা কি, যদি অন্যদের কাজ নিয়ে ভাবতে হয়, চিন্তিত হতে হয়, অথবা অন্যদের সাথে নিজেকে তুলনা করতে হয়?’

আত্মম্ভরী হয়ে নয় বরং আত্মবিশ্বাস থেকেই বললেন শাহরুখ, সবকিছু যখন ঠিকভাবে চলছে, তখন বহুদূরের ভাবনায় বিচলিত হওয়ার কোনও অবকাশ নেই।

তিনি বলেন, ‘আমার কথা শুনে অনেকে আমাকে অহংকারী ভাবতে পারে, তবে এটা স্বীকার করতেই হবে যে, এমন অনেক মানুষই আছে যারা শাহরুখ খান হতে চায়। আর আমিতো নিজেই শাহরুখ খান, তাই অন্যদের সাথে কেন নিজেকে তুলনা করব?’

সম্প্রতি পিটিআই-এর সাথে এক সাক্ষাৎকারে শাহরুখ যেন হারিয়ে যান ক্যারিয়ারের শুরুর দিনগুলোতে। বলতে থাকেন, ‘টাকা-পয়সা, বাড়ি-গাড়ি, সুন্দর ভবিষ্যৎ অথবা বাবা-মা কোনোকিছুই ছিলোনা, একদম শুন্য হাতেই এসেছিলাম বলিউডে। হারানোর কিছু ছিলোনা। কিন্তু এখন সবকিছুই হয়েছে, আর তাই মনে হয় হারানোর বিষয়টাও যোগ হয়েছে।’

নিজের অর্জনগুলোকে নিয়ে শাহরুখের দৃষ্টিভঙ্গি ভিন্ন, ‘আমার অর্জন অনেক, তাই আমি চাইলেও সেগুলো বিস্মৃত হবেনা। যখন কিছুই ছিলোনা তখন যদি আত্মবিশ্বাস এবং সাহসের সাথে সবকিছু মোকাবেলা করতে পারি, তাহলে এখন কেন নয়।’ – প্রশ্ন ছুড়ে দেন তিনি।

সাইকোলজিক্যাল থ্রিলার ‘ফ্যান’ এ দ্বৈত চরিত্রে অভিনয় অথবা ‘ডিয়ার জিন্দেগী’ তে এক্সটেন্ডেড ক্যামিও, গত দুবছরে শাহরুখ খানের ফিল্ম চয়েজ ছিল ব্যতিক্রমি। গতানুগতিক ধারার বাইরে গিয়ে করা ছবিগুলো দর্শকদের কাছে গ্রহণযোগ্যতা পায়নি।

সমসাময়িক অন্যান্যদের উচ্ছ্বসিত শাহরুখ, একই সাথে নিজের করা সিনেমাগুলোর মাঝেও প্রশান্তি খুজে পান তিনি, ‘আমার ভাবনা হচ্ছে, কোনও নির্দিষ্ট ধরনের কাজ অন্য কেউ করে ফেললে আমি আর সেই ধরণের কাজ নিয়ে ততটা আগ্রহ বোধ করি না। অন্য কাজগুলোর জন্য নিজেকে প্রস্তুত করা শুরু করি। অনেক মানুষ আমাকে চেনে, আমাকে নিয়ে ভাবে, তাদের মনে আমাকে নিয়ে ভালো বা খারাপ দুই ধরণের ভাবনাই থাকতে পারে। তবে সবার প্রত্যাশা পূরণ করা আমার পক্ষে সম্ভব নয়। একজন অভিনেতা, বাবা এবং তারকা হিসেবে প্রতিটি সকালই আমি নতুনভাবে নব উদ্যমে শুরু করি।’

সিনেমার জগতের মানুষ হলেও সিনেমা খুব কম দেখেন শাহরুখ। সেটি নিয়ে বললেন, ‘আমি একদমই সিনেমা দেখতাম না, আর তাই আমার পরিবার এখন একটা শর্ত দিয়েছে আমাকে, যে মাসে অন্তত দুটি হিন্দি সিনেমা দেখতে হবে। তাদের মতে, একজন অভিনেতা ও প্রযোজক হিসেবে আমার নিয়মিত সিনেমা দেখা উচিৎ।’

তাঁর পরিবার সিনেমার একটি তালিকাও তৈরি করেছে বলে উল্লেখ করেন শাহরুখ। আগামী বছর আনন্দ এল রাই এর নাম নিশ্চিত না হওয়া ছবিতে বামনের চরিত্রে দেখা যাবে তাঁকে। ছবিটিতে তাঁর বিপরীতে থাকবেন আনুশকা শর্মা ও ক্যাটরিনা কাইফ।

হিন্দুস্তান টাইমস অমলম্বনে

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।