আমি কোনোভাবেই গরিব থাকতে চাইতাম না

আমার জীবনে যা কিছু ঘটেছে তার মূল কারণ হল আমি ব্যর্থ হতে ভীষণ ভয় পাই। আমি যতটা না সফল হতে চাই, তার চেয়ে বেশি ব্যর্থ হতে চাই না।

আমি খুবই সাধারণ, নিম্ন-মধ্যবিত্ত পরিবার থেকে এসেছি। আমাকে অনেক ব্যর্থতা দেখতে হয়েছে। আমার বাবা খুব সুপুরুষ ছিলেন, তিনি ছিলেন পৃথিবীর সবচেয়ে সফল ব্যর্থ মানুষ। আমার মা-ও আমার বড় তারকা হওয়া দেখে যেতে ব্যর্থ হয়েছেন। আমি খুব অল্প বয়সে বাবা মাকে হারাই, দারিদ্রকে তখন ব্যর্থতা হিসেবে দেখতাম। আমি কোনোভাবেই গরিব থাকতে চাইতাম না।

তাই, যখন আমি চলচ্চিত্রে কাজ করার সুযোগ পাই তখন সেখানে কোনো শৈল্পিক আকাঙ্খা আমার ছিল না। আমি স্রেফ ব্যর্থতা ও দারিত্রের ভীতি থেকে বের হয়ে আসতে চাইছিলাম।  আমি বিখ্যাত সব অভিনেতাদের ছেড়ে দেওয়া অনেক সিনেমায় কাজ করতাম। প্রযোজকরা আর কাউকে পেত না বলে বাধ্য হয়ে আমাকে নিতো। আমি সুযোগগুলো লুফে নিতাম কারণ আমার কাজ দরকার ছিল, আমি বেকার বসে থাকতে চাইতাম না।  ওই সময় বা কিছু একটা ব্যাপার মিলে গিয়েছিল, তাই এত সব হয়েছে, আর আমি বড় তারকা হয়ে গেছি।

আমাদের শিখতে হবে যে শুধু প্রাপ্তি, অর্জন ও পূর্ণতা পাওয়াই জীবন নয়। জীবন হল কঠিন, জটিল, এটা কারো আয়ত্বে থাকে না। নম্রতাটা তাই শিখে ফেলা দরকার, এটা জীবনের উত্থান-পতনে কাজে আসে।

সফলতা একটা দারুণ ব্যাপার, তবে এর পথের অভিজ্ঞতা থেকে আমরা শিক্ষা নেই না। আমরা এটা উপভোগ করি, হয়তো এই সফলতা আমাদের প্রাপ্যও। তবুও, এখান থেকে আমরা কোনো জ্ঞান আহরণ করি না।

তাই আমি মনে করি, সফলতার সঠিক পথ হল ব্যর্থতার প্রতি ভীতি। আপনি ব্যর্থতাকে যথেষ্ট ভয় না পেলে কখনো সফল হতে পারবেন না। ব্যর্থ হওয়াটা কোনো সুখকর অভিজ্ঞতা নয়। কম-বেশি আমাদের সবার এই অভিজ্ঞতা আছে। কারো না থাকলে, শিগগিরই হয়ে যাবে। তাই, সফল হতে এটাকে কাজে লাগান।

এটা হবে ব্যর্থতার প্রতি আপনার পাল্টা জবাব। যে বিপর্যয়ের মধ্য দিয়ে আপনাকে যেতে হয়েছে তার মুখে আপনি লাগাম টেনে ধরতে পারবেন। বার বার একই ভাবে ব্যর্থ হতে হতে আমি বুঝেছি, যা করার চেষ্টা করছিলাম তা আসলে আমার কাজই নয়। এটা আমাকে মনোযোগ অন্যত্র থেকে সরিয়ে এনে নিজের সামর্থ্যের প্রতি স্বচ্ছ ধারণা দেয়।

ভীতু হতে কখনো ভয় পেতে নেই, বরং নিজের ভীতি ও  ব্যর্থতার মুখোমুখি হতে না চাওয়াই সবচেয়ে বড় ভীতি। নিজের রীতিনীতিকে প্রত্যাখ্যান করতে ভয় নেই। যে পদ্ধতি তোমার শিল্প ও মনকে হত্যা করে তাকে ভয় পেয়ো না। আরো ক্ষুধার্ত হতে ভয় নেই। প্রয়োজনের সময় একা চলতে ভয়ের কিছু নেই। জীবন টান টান করে বেঁধে রাখা দড়ির মত। এর ওপর দিয়ে তো একাই হাঁটতে হবে।

__________

২০১২ সালে বলিউড বাদশাহ শাহরুখ খান যুক্তরাষ্ট্রের ইয়েল ইউনিভার্সিটির আমন্ত্রণ পেয়েছিলেন। সেখানে হাজির হয়ে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে এই অনুপ্রেরণাদায়ী বক্তব্যটি দেন।

Related Post

অলিগলি.কমে প্রকাশিত সকল লেখার দায়ভার লেখকের। আমরা লেখকের চিন্তা ও মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত লেখার সঙ্গে মাধ্যমটির সম্পাদকীয় নীতির মিল তাই সব সময় নাও থাকতে পারে।